শুক্রবার, নভেম্বর ২৩, ২০১৮, ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দারুণ এক সেঞ্চুরি তুলে নেন মুমিনুল হক। তার ব্যাটে চড়ে বড় রানের দিকেই যাচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু হঠাৎই পরপর চার ওভারে মুমিনুলসহ সেরা চার ব্যাটসম্যানকে তুলে নিয়ে সাকিব বাহিনীকে চাপে ফেলে দিয়েছে ক্যারিবিয় গতিময় বোলার শ্যানন গ্যাব্রিয়েল।
এরপর মিরাজ আউট হলে তিনশ রানের আগেই অলআউটের শঙ্কায় পড়ে বাংলাদেশ। সেখানে থেকে নবম উইকেটে অর্ধশত ছাড়ানো জুটি গড়েন তাইজুল-নাঈম। এ দুজনের পরম ধৈর্য্যশীল ব্যটিংয়ে কাঙ্ক্ষিত সেই তিনশ পার করে টাইগাররা। শুধু তা-ই নয়, দ্বিতীয় দিনেও ব্যাট করবে বাংলাদেশ দল।
দিনশেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ৩১৫ রান তুলেছে বাংলাদেশ। তরুণ অভিষিক্ত নাঈম হাসান ৬০ বল মোকাবেলা করে ২৪ রানে এবং তাইজুল ইসলাম ৩২ রানে অপরাজিত আছেন। নবম উইকেটে ১৫.৫ ওভার ক্রিজে থেকে ৫৬ রানের জুটি গড়ে চমক দিয়েছেন এ দুই টেলএন্ডার।
এর আগে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের শুরুতে সৌম্যকে হারায় বাংলাদেশ। এরপর মুমিনুল-ইমরুল শত রানের জুটি গড়েন। ইমরুল ফিরে যান ফিফটির আগেই। তবে ঢাকা টেস্টের পর চট্টগ্রাম টেস্টেও সেঞ্চুরি পান মুমিনুল। সেঞ্চুরির পরে তিনি বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। ফেরেন ১২০ রান করে। তার আউটের পর ক্রিজে এসে একে একে ফেরেন মুশফিকুর ও মাহমুদুল্লাহ। তারা যথাক্রমে ৪ ও ৩ রান করেন। তবে দলকে ভরসা দিতে ক্রিজে ছিলেন সাকিব। তিনিও গ্যাব্রিয়েলের শিকার হয়ে ফেরেন ৩৪ রানে। বাংলাদেশ ১৩ রানে হারায় ৪ উইকেট।
এরপর ক্রিজে এসে মেহেদি মিরাজ বেশ ভালো ব্যাট করা শুরু করেন। রান উঠতে থাকে তার ব্যাটে। কিন্তু সেই সম্ভাবনাকে বড় করতে পারেননি তিনিও। ফিরে যান নিজের ২২ রানে। দলের রান তখন ২৫৯।
এর আগে ৪৪ রান করে ফেরেন ইমরুল। মিঠুন ফেরেন ২০ রান করে। সৌম্য দলের হয়ে কোন রান করতে পারেনি। তবে পরপর দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি পেলেন মুমিনুল হক। টেস্ট ক্যারিয়ারে এটি তার অষ্টম সেঞ্চুরি। এছাড়া চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ষষ্ঠ সেঞ্চুরি পেলেন মুমিনুল হক। এই স্টেডিয়ামে এক হাজার রান করারও পথে ছিলেন তিনি। কিন্তু তার আগে আউট হয়ে ফিরলেন।
বাংলাদেশ দুই ম্যাচ সিরিজের প্রথম ম্যাচে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয়। ম্যাচের আগের দিন খেলা নিয়ে সংশয়ের কথা জানালেও দলে ফিরেছেন টেস্ট অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। তার সঙ্গে অভিষেক হয়েছে ডান হাতি স্পিনার নাঈম হাসানের। চার স্পিনার এবং এক পেসার নিয়ে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ।