শনিবার, এপ্রিল ১৩, ২০১৯, ১০:৫৬ অপরাহ্ণ

নিউজ মিডিয়া ২৪:ঢাকা: নববর্ষের আগে বৈশাখী ভাতা তুলতে পারেননি শিক্ষক-কর্মচারীরা। ব্যাংকে দেরিতে চেক জমা হওয়ায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ফলে কারো পক্ষেই বৈশাখী ভাতা তোলা সম্ভব হয়নি বলে শিক্ষক-কর্মচারীদের অভিযোগ। এতে অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তবে কয়েকজন শিক্ষক ভাতার টাকা তুলতে পেরেছেন বলেও জানা গেছে।
শিক্ষক নেতারা জানান, তারা ব্যাংক থেকে বৈশাখী ভাতার টাকা তুলতে পারেননি। দেশের বেশিরভাগ স্থানে এ ঘটনা ঘটেছে। ফলে অগ্রণী, রূপালী, জনতা এবং সোনালী ব্যাংকের বিভিন্ন জেলা শাখায় সাধারণ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষকরা সারাদিন ধরনা দিয়েও বৃহস্পতিবার (১২ এপ্রিল) বিকেলে টাকা তুলতে না পেরে ফিরে গেছেন।
দেশের বিভিন্ন স্থানের শিক্ষকদের অভিযোগ, তাদের সঙ্গে বৈশাখী ভাতা প্রদান ও বণ্টন নিয়ে বৈষম্যমূলক আচরণ করা হয়েছে। ফলে পহেলা বৈশাখের আগে মাদরাসা শিক্ষকরা বৈশাখী ভাতার সুবিধা ভোগ করতে পারলেন না। বৈশাখের আনন্দ তাদের অনেকটাই ম্লান হয়ে গেল।
ব্যাংক ম্যানেজাররা বলছেন, বিলম্বে চেক ছাড়ের কারণে, ভাতা বণ্টনকারী ব্যাংকের শাখায় টাকা পৌঁছেনি। তাই টাকা দেয়া সম্ভব হয়নি।
উৎসবের আগে বৈশাখী ভাতা না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ শিক্ষক-কর্মচারী সমিতির সভাপতি নজরুল ইসলাম রনি। শনিবার তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, আমাদের কোনো শিক্ষক-কর্মচারী বৈশাখী ভাতা তুলতে পারেননি। সকলে ব্যাংকে গিয়ে ফিরে এসেছেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে আমাদের বৈশাখী ভাতা দেয়া হলেও উৎসবের আগে কেউ টাকা তুলতে পারেননি।
তিনি আরও বলেন, ভাতার টাকা তুলতে না পারায় শিক্ষকদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছে। এক শ্রেণির দুষ্টু কর্মকর্তাদের জন্য এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। তারা ইচ্ছে করে দেরিতে ব্যাংকে চেক জমা দিয়েছেন। এ কারণে শিক্ষকরা টাকা তুলতে ব্যাংকে গিয়ে হতাশ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

RSS
EMAIL
Facebook20
Facebook
Google+20
Google+
http://newsmediabd24.com/%E0%A6%AC%E0%A7%88%E0%A6%B6%E0%A6%BE%E0%A6%96%E0%A7%80-%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A6%BE-%E0%A6%A4%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A7%87">
Twitter20
Visit Us
YouTube20
PINTEREST
LINKEDIN