ভারতকে ১৭৪ রানের সহজ লক্ষ্য দিল বাংলাদেশ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : ডেস্ক : ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশ সুপার ফোরে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ভালো শুরু করতে পারেনি। টস হেরে প্রথমে ব্যাটে নামে বাংলাদেশ। কিন্তু শুরু থেকেই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় মাশরাফি বাহিনী। টপ অর্ডারে-মিডল অর্ডারে দাঁড়াতে পারেননি কেউ। পরে মাশরাফি-মেহেদির ব্যাটে ১৭৩ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ।
ওপেনিংয়ে নেমে এদিন লিটন দাস এবং নাজমুল হোসাইন শান্ত ভালো শুরু করতে পারেননি। আফগানদের বিপক্ষে ম্যাচের মতো শুরুতে উইকেট বিলিয়ে ফেরেন তারা। শুরুর চারটি ওভার ভালোই পার করেন; পঞ্চম ওভারে সীমানায় ক্যাচ দিয়ে ফেরেন লিটন দাস। পরের ওভারে ফেরেন নাজমুল হোসাইন শান্ত। এরপর ভালো শুরুর ইঙ্গিত দিয়েও দ্রুত ফিরে যান সাকিব আল হাসান।
শুরুর তিন উইকেটই ভারতীয় বোলারদের উপহার দিয়ে ফেরে বাংলাদেশ। সীমানায় ফিল্ডার থাকতেও পুল খেলেন লিটন। অফের বলে কাট করতে গিয়ে ফেরেন শান্ত। এছাড়া জাদেজার প্রথম ওভারে পরপর দুটি চার মারার পরের বলে আবার শট খেলতে গিয়ে ফেরেন সাকিব। শুরুতে ১৫ এবং ১৬ রানে ২ উইকেট হারায় বাংলাদেশ। সাকিব ফিরে যান দলের ৪২ রানে।
এরপর ক্রিজে আসেন শ্রীলংকার বিপক্ষে দারুণ জুটি গড়া মুশফিক এবং মিঠুন। কিন্তু তারাও কোন ভরসা দিতে পারেননি দলকে। এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে পড়ে মিঠুন ফেরেন দলের ৬০ রানে। দল হারায় চতুর্থ উইকেট। দলের রান মাত্র ৫ যোগ হতেই ৬৫ রানে সুইপ খেলতে গিয়ে ফেরেন সর্বশেষ ম্যাচে সেঞ্চুরি পাওয়া মুশফিক।
এরপর মাহমুদুল্লাহর ব্যাটে লড়াইয়ের প্রত্যাশা করছিল বাংলাদেশ দল। কিন্তু তিনিও সেট হয়ে ফিরে যান। দলীয় ১০১ রানে নিজের ২৫ রানে ফেরেন তিনি। আম্পায়ারের ভুলে ব্যাট-প্যাড হওয়া বলে এলবিডব্লিউয়ের শিকার হন মাহমুদুল্লাহ। এরপর দলে কোন রান যোগ হবার আগেই ফেরেন মোসাদ্দেক। তিনি করেন ১২ রান। বাংলাদেশ ৭ উইকেটে ১০৭ রান তুলে ধুঁকছে তখন।
সেটা ১৭৩ এ নিয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব মেহেদি মিরাজ এবং মাশরাফির। দলের পক্ষে এ ম্যাচে সর্বোচ্চ রান করেন মেহেদি মিরাজ এবং মাশরাফি। তারা দুজন অষ্টম উইকেটে ৬৮ রানের জুটি গড়েন। মাশরাফি দুই ছয়ের সুবাদে খেলেন ২৬ রানের ইনিংস। এছাড়া মেহেদি মিরাজ দুই চার ও দুই ছয়ে করেন ৪২ রান। শেষ পর্যন্ত ৪৯.১ ওভারে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ।
ভারতের পক্ষে এ দিন দলে ফিরেই দুর্দান্ত বল করেন রাভেন্দ্র জাদেজা। ১০ ওভার হাত ঘুরিয়ে মাত্র ২৯ রানে ৪ উইকেট নেন তিনি। ভুবনেশ্বর কুমার ১০ ওভারে ৩২ রানে পান ২ উইকেট। এছাড়া শেষে ওভারে দুই উইকেটসহ ৩ উইকেট পান বুমরাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *