চালক ছাড়াই ৯০ কিলোমিটার চলল ট্রেন

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : ডেস্ক : চালক ছাড়াই দ্রুতগতিতে প্রায় এক ঘণ্টায় ৯০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দেয়ার পর রেললাইন থেকে ছিটকে পড়েছে একটি ট্রেন। মালবাহী এই ট্রেনের চালক ছাড়া দ্রুতগতিতে ছোটার ঘটনা ঘটেছে অস্ট্রেলিয়ায়। তবে রেললাইন থেকে উল্টে পড়লেও কোনো প্রাণহানির ঘটনা ঘটেনি।
এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার ২৬৮ ওয়াগনের চালক ক্যাব থেকে নেমে ট্রেনের যান্ত্রিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখছিলেন। এসময় হঠাৎ ট্রেনটি ধীর গতিতে ছুটতে শুরু করে। পরে ধীরে ধীরে এর গতি বাড়তে থাকে। রেললাইন থেকে ছিটকে পড়ার সময় ট্রেনের গতি বেড়ে দাঁড়ায় ঘণ্টায় ১১০ কিলোমিটারে।
দেশটির খনি জায়ান্ট কোম্পানি বিএইচপি পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার পিলবারার বন্দরনগরী হেডল্যান্ডে পৌঁছার আগে ট্রেনটিকে লাইনচ্যুত করার সিদ্ধান্ত নেয়। বন্দরের কাছে ট্রেন থামানোর জন্য গতিপ্রতিরোধক বসায় বিএইচপি।
হেডল্যান্ডে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়ে আঁছড়ে পড়ে। এতে রেললাইনের প্রায় দেড় হাজার মিটার ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।
দ্য ওয়েস্ট অস্ট্রেলিয়ার প্রকাশিত ছবিতে সোমবারের এই দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত ট্রেনের কিছু ওয়াগন উল্টে আছে। ট্রেনটিতে করে লৌহ আকরিক পরিবহন করা হচ্ছিল। বিশ্বের লৌহ আকরিকের অন্যতম বৃহৎ উৎস অস্ট্রেলিয়া।
বুধবার বিএইচপি বলছে, ট্রেনটি উদ্ধার ও লাইন মেরামত করতে প্রায় ১৩০ জন কর্মী কাজ করছেন। তবে ওই রেললাইন স্বাভাবিক হতে আরো এক সপ্তাহ সময় লাগতে পারে।

সৌদির নতুন ব্যাখ্যা মেনে নেয়া কঠিন-অর্থহীন, জড়িতদের বিচার চায় জাতিসংঘ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: সৌদি আরবের পক্ষ থেকে সাংবাদিক জামাল খাসোগজির হত্যাকাণ্ডের কথা আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করে নেয়ার পর এ ব্যাপারে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। একইসঙ্গে এ ব্যাপারে হোয়াইট হাউজ’সহ অন্যান্য মার্কিন কর্মকর্তারাও প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন। তাদের কেউ কেউ খাসোগজি হত্যায় সৌদি আরবের এ ব্যাখ্যাকে মেনে নেওয়া কঠিন বলেও মন্তব্য করেছেন।
অ্যান্তোনিও গুতেরেস তাৎক্ষণিক এক বিবৃতিতে খাসোগজির হত্যাকাণ্ডে গভীর দুঃখ প্রকাশ করে এ ব্যাপারে নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, সবরকম প্রভাবের ঊর্ধ্বে থেকে এই হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করতে হবে।
সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন শুক্রবার রাতে প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকার করেছে, খাসোগজি ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটে নিহত হয়েছেন।
এ সম্পর্কে মার্কিন সিনেটর লিন্ডসে গ্রাহাম এক টুইটার বার্তায় লিখেছেন, ‘প্রথমে বলা হলো খাসোগজি কনস্যুলেট ত্যাগ করেছেন এবং তার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় সৌদি আরবের কোনো হাত নেই। এখন বলা হচ্ছে, সৌদি যুবরাজের অজ্ঞাতসারে কনস্যুলেটের ভেতরেই খাসোগজিকে হত্যা করা হয়েছে। নতুন এই ব্যাখ্যা মেনে নেয়া কঠিন।’
মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদে ক্যালিফোর্নিয়া থেকে নির্বাচিত প্রতিনিধি টেড লিউ সৌদি আরবের সর্বশেষ ঘোষণাকে ‘অর্থহীন’ আখ্যায়িত করেছেন। তিনি তুর্কি ও মার্কিন গোয়েন্দা সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন, ‘সংঘর্ষে’ নিহত ব্যক্তির দেহ করাত দিয়ে কেটে টুকরা টুকরা করার প্রয়োজন ছিল না।
তবে হোয়াইট হাউজ সৌদি আরবের স্বীকারোক্তির ব্যাপারে ভিন্নরকম প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স বলেছেন, জামাল খাশোগির গুম হওয়ার ব্যাপারে সর্বশেষ তদন্তের যে ফলাফল সৌদি আরব প্রকাশ করেছে এবং এ ঘটনায় জড়িতদের বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নিয়েছে তাতে সন্তোষ প্রকাশ করছে হোয়াইট হাউজ।
স্যান্ডার্স আরো বলেন, খাসোগজির হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ওয়াশিংটন গভীর দুঃখ প্রকাশ করছে এবং তার পরিবার, বাগদত্তা ও বন্ধুদের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে।

মেয়ের মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে ৮ কি.মি. হেঁটে হাসপাতালে বাবা

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: ময়নাতদন্তের জন্য ৭ বছরের মেয়ের মৃতদেহ কাঁধে করে নিয়ে হাসপাতালে এলেন হতভাগ্য এক বাবা। গাড়ি ভাড়া করে লাশ নিয়ে যাবার সামর্থ ছিলনা তার।
ভারতের উড়িষ্যার গজপতি জেলায় মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে। সূত্র: এনডিটিভি
স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেলে এ ঘটনার একটি সচিত্র খবর প্রকাশ হলে উরিষ্যায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।
এরপর গতকাল ভারতের বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদটি প্রকাশ হয়।
এ ঘটনার পর সরকারের তীব্র সমালোচনা করছেন বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন।
এ কারণে গজপতির জেলাপ্রশাসককে তলব করেছে দেশটির রাজ্য সরকার।
ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম এনডিটিভিতে প্রকাশ, গত ১১ অক্টোবর তিতলি ঘূর্ণিঝড়ের সময় গজপতি জেলার আতঙ্কপুর গ্রামে নিখোঁজ হয়ে যায় মুকুন্দ দোরার ৭ বছরের মেয়ে ববিতা।
পরে বুধবার একটি নালার মধ্যে ববিতার মৃতদেহটি উদ্ধার হয়।
হতভাগ্য পিতা মুকুন্দ সংবাদমাধ্যমে বলেন, ‘পুলিশ এসে মৃতদেহের ছবি তুলে নিয়ে যায় আর মৃতদেহ ময়না তদন্তের জন্য ভবানীপাটনা হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে বলে যায়।’
কিন্তু পুলিশ মৃতদেহ নিয়ে যাওয়ার কোনো ব্যবস্থা না করে তাকেই হাসপাতালে মেয়ের মৃতদেহ নিয়ে যেতে হবে নির্দেশ দিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন মুকুন্দ দোরা।
মুকুন্দ আরও বলেন, ‘আমি গরিব মানুষ। গাড়ি ভাড়া করার সামর্থ আমার নেই। ফলে মেয়ের দেহ বস্তায় ভরে কাঁধে চাপিয়েই হাসপাতালে নিয়ে যাই।’
উরিষ্যার ত্রাণ দফতরের এক মুখপাত্র দেশটির সংবাদ মাধ্যমে জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড় তিতলির সময় ববিতার মৃত্যু হয়।
উল্লেখ্য, ২০১৬ সালে উড়িশার কালাহান্ডি জেলাতেও প্রায় এরকমই একটি ঘটনা ঘটেছিল। হাসপাতাল থেকে স্ত্রীর মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে ১০ কিলোমিটার পায়ে হেঁটে ঘরে ফিরেছিলেন এক ব্যক্তি।

সৌদিকে চরম শাস্তির হুমকি ট্রাম্পের

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক : সাংবাদিক জামাল খাশোগির নিখোঁজের ঘটনায় সৌদি আরবকে চরম শাস্তির হুশিয়ারি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। খবর ডেইলি সাবাহর।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যমে সিবিএস এর ‘৬০ মিনিটস’ প্রোগ্রামে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, আমরা ঘটনার শিকড় পর্যন্ত প্রায় পৌঁছে গেছি। যদি জামাল খাশোগিকে হত্যা করা হয়ে থাকে তাহলে চরম শাস্তি দেয়া হবে।
সৌদি আরবের বর্তমান বাদশাহ ও যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের কঠোর সমালোচক সাংবাদিক জামাল খাশোগি। তিনি গত ২ অক্টোবর তুরস্কে সৌদি কনস্যুলেটে গিয়ে আর ফিরে আসেননি।
তুরস্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, জামাল খাশোগিকে কনস্যুলেটের মধ্যে হত্যা করা হয়েছে। তিনি সেখানে যাওয়ার দুই ঘণ্টার মধ্যে তাকে হত্যা করে কেটে টুকরো টুকরো করা হয়।

যৌন কেলেঙ্কারি: মন্ত্রিত্ব হারাতে পারেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: ভারতের সিনেমা পাড়া বলিউডে শুরু হওয়া মিটু আন্দোলনের ঢেউ দেশটির রাজনীতির ময়দানেও আঘাত হেনেছে। এরইমধ্যে দেশটির পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ তুলেছেন ছয়জন নারী সাংবাদিক। আর এ নিয়ে তোপের মুখে আছে ক্ষমতাসীন বিজেপি। গুঞ্জন উঠেছে মন্ত্রিত্ব ছাড়তে হতে পারে আকবরকে।
বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে ভারতের দৈনিক আনন্দবাজার জানিয়েছে, আকবরকে সরিয়ে দিতে বিরোধীরা সরকারকে চাপ দিচ্ছে। তবে আফ্রিকা সফর থাকা মন্ত্রীর বিরুদ্ধে এখনই কোনও সিদ্ধান্ত নেবে না সরকার। বরং সফর দেশে তিনি দেশে ফিরলে মন্ত্রীর কাছে ওই নারীদের অভিযোগের ব্যাপারে বক্তব্য চাওয়া হবে। সেক্ষেত্রে মন্ত্রীকে নিজে থেকেই সরে দাঁড়ানোর নির্দেশ দিতে পারেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।
এদিকে আকবরের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠার পর সরকারের চার শীর্ষ মন্ত্রী- অরুণ জেটলি, রাজনাথ সিং, নিতিন গডকড়ী এবং সুষমা স্বরাজ তাকে সরিয়ে দিতে প্রধানমন্ত্রীকে চাপ দিয়ে যাচ্ছেন। কিন্তু সূত্র জানিয়েছে, আকবরকে বরখাস্ত করা হবে না। বরং সরকারের শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করছে, তিনি নিজে থেকেই সরে গেলে সেটা ভালো হবে।
বস্ত্রমন্ত্রী স্মৃতি ইরানি মন্ত্রীর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে মুখ খুলেছেন। মন্ত্রীর নাম উল্লেখ না করে স্মৃতি বলেন, যার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, তিনি নিজেই যেন বিবৃতি দেন। তবে কর্মক্ষেত্রে নিজেদের যৌন হেনস্থার কথা নারীরা প্রকাশ করা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। কোনোভাবে যেন এটি বন্ধ না করা হয়।
স্মৃতির এই মন্তব্যের পর অনেকটা স্পষ্ট যে, আকবরকে সরিয়ে দেয়ার প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে। তবে শুধু সরকারের ভেতর থেকেই নয় চাপ আসছে বাইরে থেকেও। জানা গেছে, আরএসএসও এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদির কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে। কংগ্রেস আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু না জানালেও সেদিক থেকেও যে ঢেউ আসছে তা নিশ্চিত করেই বলা যায়।
আগামী বছর ভারতে লোকসভা নির্বাচন। তাই সরকারের ভেতর ও বাইরে আকবরের বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠায় আপাতত তাকে সরিয়ে দিতে পারলেই যেন হাঁপ ছেড়ে বাঁচেন মোদি। সরকার মনে করছে আকবর নিজে থেকে সরে গেলে অভিযোগের তীরটা অন্তত তাদের দিক থেকে সরে যাবে। যদিও দলের একটি অংশ মনে করছে, এতে করে বিরোধীরা সমালোচনার একটি ইস্যু পেয়ে যাবে। তখন তারা অন্যান্য মন্ত্রীদের বিরুদ্ধেও একই ধরনের অভিযোগ তুলতে পারে বলে ওই অংশের মত।

যুক্তরাষ্ট্রে ঘূর্ণিঝড় ‘মাইকেলে’র আঘাতে লণ্ডভণ্ড

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্যে আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় মাইকেল ‘অকল্পনীয় ধ্বংসযজ্ঞ’ চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন সেখানকার গভর্নর রিক স্কট। মূলত ঘরবাড়ি, গাছপালা ও অন্যান্য অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তবে এতে প্রাণহানি ঘটেছে অন্তত ১৫জনের এবং উদ্ধারকর্মীদের বিশেষ অভিযানে ২৭ জনকে বিপজ্জনক অবস্থা থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

অঙ্গরাজ্যের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় এলাকাগুলোর হাজার হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে। গাছপালা উপড়ে গেছে এবং বিদ্যুৎ সংযোগের খুঁটিগুলো রাস্তায় আছড়ে পড়েছে।

গত বুধবার আঘাত হানার সময় ঘূর্ণিঝড় মাইকেলের গতি ছিল প্রতি ঘণ্টায় ২৫০ কিলোমিটার। ঘূর্ণিঝড়টি ক্রমে দুর্বল হয়ে ঝড়ে পরিণত হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডের ভেতরে অবস্থান করছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় হারিকেন সেন্টার (এনএইচসি) জানিয়েছে, এটি প্রতি ঘণ্টায় ৮০ কিলোমিটার বেগে জর্জিয়ার ওপর দিয়ে বয়ে এখন তা নর্থ ক্যারোলাইনার গ্রিনসবরোর কাছে রয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় মাইকেলের ক্ষতি মোকাবিলায় চারটি অঙ্গরাজ্য—ফ্লোরিডা, অ্যালাবামা, জর্জিয়া ও নর্থ ক্যারোলাইনায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করা হয়।

মাঝপথ থেকেই ফিরে আসলেন দুই নভোচারী

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: উৎক্ষেপণের পর কারিগরি ত্রুটি দেখা দেয়ায় রাশিয়ার একটি সয়ুজ রকেটের দুই নভোচারী পৃথিবীতে ফিরে এসেছেন। মার্কিন মহাকাশ গবেষণা কেন্দ্র ‘নাসা’ জানিয়েছে তাদের বহনকারী ক্যাপসুলটি নিরাপদে কাজাখাস্তানে অবতরণ করেছে।

জানা গেছে রুশ নভোচারী আলেক্সেই ওভচিনিন এবং মার্কিন নভোচারী নিক হেগ এই রকেটে করে আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে (আইএসএস) যাচ্ছিলেন। তারা দুজনেই ভালো এবং নিরাপদ আছেন।

বিবিসি জানিয়েছে ক্যাপসুলটি কাজাখাস্তানের যে অঞ্চলে অবতরণ করেছে সেখানে তাদের খোঁজে তল্লাশি দল পাঠানো হয়েছে।

আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে পাঠানোর জন্য তাদের বহনকারী রকেটটি উৎক্ষেপণ করা হয় বৃহস্পতিবার ভোরে। এটি ছয় ঘণ্টা পর আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে পৌঁছানোর কথা ছিল।

কিন্তু তার আগেই রকেটের ‘বুস্টারে’ কারিগরি ত্রুটি দেখা দেয়ার পর এটিকে ‘ব্যালিস্টিক ডিসেন্ট মডে’ পৃথিবীতে ফিরিয়ে আনা হয় বলে জানিয়েছে নাসা।

ব্যালিস্টিক ডিসেন্ট মড- মানে হচ্ছে সাধারণত যে কোনাকুনি পথে কোনো রকেট পৃথিবীতে ফিরে আসে, তার চেয়ে অনেক খাড়া বা সোজা পথে এটিকে পৃথিবীতে অবতরণ করানো।

ফিরে আসা দুই নভোচারীর আগামী ছয় মাস আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে থাকার কথা ছিল।

রুশ নির্মিত সয়ুজ রকেটের ডিজাইন করা হয়েছে বেশ কয়েক দশক আগে। কিন্তু এখনও এটিকে বিশ্বের সবচেয়ে নিরাপদ রকেটগুলোর একটি বলে মনে করা হয়।

বেশ কয়েক বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ যান কর্মসূচী শাটল বন্ধ করে দেয়া হয়। এর পর থেকে সয়ুজই আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্রে যাতায়তের একমাত্র ভরসা।

ঘুষখোর-দুর্নীতিগ্রস্ত নেতা ধরার আইন করছেন ইমরান

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: ক্ষমতায় আসার পর দেশের উন্নতিতে একাধিক নজরকাড়া পদক্ষেপ নিয়েছেন পাকিস্তানের নতুন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তিনি বারবার বলেছেন, দেশ চালানোর মতো অর্থ নেই পাকিস্তানে। দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক নেতারা সব লুটেপুটে খেয়েছেন।এবার সেই ঘুষখোর-দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের ধরতে নতুন আইন করতে যাচ্ছেন পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের (পিটিআই) এ নেতা। রোববার লাহোরে এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন আইন করার ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি রাষ্ট্রের অর্থসংকট দূর করতে বিদেশে পাচার হওয়া এসব অর্থ ফিরিয়ে আনারও প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন ইমরান। খবর এএফপি ও ডনের।
দুর্নীতিমুক্ত পাকিস্তান গড়ার প্রত্যয় নিয়ে জুলাইয়ে নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসেন সাবেক ক্রিকেট তারকা ইমরান খান।
পূর্ববর্তী নেতারা রাষ্ট্রীয় অর্থ লুটপাট করেছেন বলে অভিযোগ তোলেন তিনি।
ইমরান বলেন, চরম অর্থসংকটে রয়েছে পাকিস্তান। চুরি হওয়া দেশের সম্পদ উদ্ধার করতে পারলেই সে সংকট দূরীভূত হবে।
জোর গলায় প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, গত কয়েক দশকে পাকিস্তানের কোটি কোটি ডলার রাষ্ট্রীয় সম্পদ চুরি হয়েছে। সেগুলো দেশ থেকে পাচার হয়েছে।
দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের ধরতে নতুন আইন করার বিষয়ে ইমরান বলেন, আইনটি হলে দুর্নীতিগ্রস্ত নেতাদের চিহ্নিত করা যাবে। এসব নেতার কাছ থেকে অসদুপায়ে অর্জিত প্রায় ২০ শতাংশ সম্পদ রাষ্ট্রের কাজে লাগানো যাবে।
আর বাকি ৮০ শতাংশ অর্থ দিয়ে পাকিস্তানের ঋণ পরিশোধ করা সম্ভব হবে। এ ব্যাপারে বিস্তারিত কিছু বলেননি তিনি।
ইমরান জানান, নতুন আইন তৈরির বিলটি কয়েক দিনের মধ্যে পার্লামেন্টে তোলা হবে।
দুর্নীতিগ্রস্ত রাজনৈতিক নেতা ও সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সাহায্যকারীকে বিশেষ পুরস্কার দেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন ইমরান।
এদিকে সোমবার থেকে শুরু হয়েছে ইমরান খানের ‘ক্লিন অ্যান্ড গ্রিন’ কর্মসূচি।
ক্ষমতায় এসে সবুজ ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন পাকিস্তান গড়ার ডাক দিয়েছিলেন তিনি। এটি তার ক্ষমতার ১০০ দিনের কর্মসূচির অন্তর্ভুক্ত। এর আওতায় ১০০ কোটি গাছ লাগানোর প্রকল্পও ঘোষণা করেছেন ইমরান।
তার এ স্বচ্ছতা অভিযানের পদক্ষেপের ঘটনায় রাজনৈতিক মহল বলছে, ভারতের দেখানো পথেই হাঁটছে পাকিস্তান। ইমরান সরকারের ‘ক্লিন অ্যান্ড গ্রিন পাকিস্তান’ কর্মসূচি প্রাথমিকভাবে পাক অধিকৃত কাশ্মীর ও বেলুচিস্তানে শুরু হয়েছে। ইমরান খানের জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক উপদেষ্টা মালিক আমিন আসলাম বলেন, দেশজুড়ে ৬ জন স্বচ্ছতা দূত নিয়োগ করা হবে।
একই সঙ্গে দেশের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, ধর্মীয় নেতা, বিশিষ্ট ব্যক্তিদেরও শামিল করা হবে এই অভিযানে। এছাড়া পাকিস্তানের বেসরকারি সংস্থা, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই অভিযানে কাজ করার জন্য আহ্বান জানানো হবে। শুধু স্বচ্ছতা অভিযানই নয়।
দেশ থেকে পোলিও দূরীকরণেরও উদ্যোগ নিয়েছেন ইমরান খান। পাকিস্তানের মতো দেশে পোলিও দূরীকরণের মতো অভিযান সফল করা বেশ কঠিন। কারণ এ বিষয়ে দেশে বেশ কিছু ভুল ধারণা রয়েছে। ইমরান খান পোলিও দূরীকরণের জন্য ৫ বছরের একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছেন।
২০১৪ সালের ২ অক্টোবর স্বচ্ছতা অভিযান চালু করেছিলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ২০১৯ সালের ২ অক্টোবরের মধ্যে দেশকে নির্মল করে তোলার পরিকল্পনা রয়েছে মোদি সরকারের।

পৃথিবী নিয়ে বিজ্ঞানীদের ‘ভয়াবহ’ সাবধান বাণী

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক : পৃথিবী গ্রহ নিয়ে ‘ভয়াবহ’ সাবধান বাণী দিয়েছেন জাতিসংঘের একদল বিজ্ঞানী।
বিশ্বনেতাদের সতর্ক করে তারা বলেছেন, আগামী কয়েক বছরের মধ্যে পৃথিবীর উত্তাপ এক ডিগ্রিও কমানো সম্ভব হবে কিনা তার ওপর এই গ্রহের বাঁচা-মরা নির্ভর করছে।
নোবেল পুরস্কার বিজয়ী সংস্থা ইন্ট্রাগভার্নমেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জের (আইপিসি) বিজ্ঞানীরা রোববার দক্ষিণ কোরিয়ার ইচিয়নে এক সম্মেলনে উষ্ণায়ন বিষয়ে প্রতিবেদন উপস্থাপন করে এই সতর্কবার্তা দেন।
উষ্ণতা বৃদ্ধি ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার আহ্বান জানিয়ে বিজ্ঞানীরা বলেন, ‘উষ্ণায়ন সম্পর্কে এটাই শেষ সাবধান বাণী। এরপর আর চাইলেও তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের কোনো উপায় থাকবে না। পৃথিবী এখনই সম্পূর্ণ লাগামহীন হয়ে তাপমাত্রা প্রায় ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধির দিকে এগিয়ে চলেছে।’
এই প্রতিবেদনে বলা হয়, বৈশ্বিক উষ্ণায়নকে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে হলে, সমাজের সব ক্ষেত্রে দ্রুত, সুদূরপ্রসারী ও নজিরবিহীন কিছু পরিবর্তন আনতে হবে।
এটা অত্যন্ত ব্যয়সাপেক্ষ হলেও তা করার সুযোগ এখনো শেষ হয়ে যায়নি, উল্লেখ করা হয় প্রতিবেদনে।
তিন বছর ধরে গবেষণার পর বিভিন্ন দেশের সরকারের সঙ্গে দক্ষিণ কোরিয়ায় আরো এক সপ্তাহ দর কষাকষি করে আইপিসিসি। এরপরই বিশেষ প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হলো বলে খবর দিয়েছে ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি।
সম্মেলনে প্রতিবেদনের ৩৩ পৃষ্ঠার একটি সারসংক্ষেপ পেশ করা হয়, বিভিন্ন দেশের সরকারের প্রতিনিধিদের জন্য। এতে জলবায়ু গবেষকদের গবেষণার ফলাফল এবং অর্থনীতি ও জীবনযাপনের মান নিয়ে চিন্তিত রাজনীতিকদের মতের পার্থক্য স্পষ্টভাবে ফুটে উঠেছে।
এই সম্মেলনে পর্যবেক্ষক কাইসা কোসোনেন বলেন, বিজ্ঞানীরা বড় বড় হরফে ‘এখনই পদক্ষেপ নাও আহাম্মক’ লিখতে চাইলেও তাদের সেটা করতে হবে তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে এবং তারা সেটিই করেছেন।
বিবিসি জানায়, বিজ্ঞানীরা এসব তথ্য-উপাত্ত ও প্রকৃত উদাহরণ ব্যবহার করে বিপজ্জনক জ্বরে আক্রান্ত এক পৃথিবীর চিত্র তুলে ধরেছেন। আমাদের ধারণা ছিল, এই শতাব্দীতে পৃথিবীর তাপমাত্রা বৃদ্ধি ২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে আটকে রাখা গেলে জলবায়ুর পরিবর্তন সামাল দেয়া যাবে।
কিন্তু, এখন আর পরিস্থিতি সে রকম নেই। নতুন গবেষণাটি জানাচ্ছে, তাপমাত্রা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি বৃদ্ধি পেলে পৃথিবী আর বাসযোগ্য থাকবে কিনা তা নিয়েই সন্দেহ দেখা দিচ্ছে এবং মাত্র ১২ বছরের মধ্যেই অর্থাৎ ২০৩০ সাল নাগাদ এই ‘নিরাপদ বেষ্টনী’ ভেঙ্গে বেরিয়ে যেতে পারে পৃথিবীর তাপমাত্রা।
আমরা চাইলে এই সীমার মধ্যে তাপমাত্রা ধরে রাখতে পারি। কিন্তু, তা করতে সরকার, এমনকি সাধারণ মানুষেরও আচরণে ব্যাপক পরিবর্তন দরকার হবে। সেই সঙ্গে খরচ হবে বিপুল পরিমাণ অর্থ। আগামী দুই দশকে এতে প্রয়োজন হবে বিশ্বের মোট জিডিপির ২.৫ শতাংশ।
এরপরও আমাদের এমন সব যন্ত্র, গাছ ও কারখানা দরকার হবে, যা দিয়ে বাতাসের কার্বন ধরে মাটির নিচে পুঁতে রাখা যাবে, চিরকালের জন্য!

পাকিস্তানের সঙ্গে বৈঠক বাতিল করলো ভারত

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা :ডেস্ক : কাশ্মিরের সোপিয়ানে তিন পুলিশের অপহরণ ও খুনের ঘটনার পর পাকিস্তানের সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক বাতিল করেছে ভারত। জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বৈঠকের ফাঁকে আগামী সপ্তাহে পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশির সঙ্গে আলোচনায় বসার কথা ছিল পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের। সোপিয়ানের ঘটনার পর শুক্রবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তরফে বলা হয়েছে, ‘আলোচনা আর সন্ত্রাস একই সঙ্গে চলতে পারে না।’ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র রবীশ কুমার বলেছেন, ‘ক্ষমতায় আসার কয়েক মাসের মধ্যেই ইমরান খানের মুখোশটা সরে গিয়ে মুখটা বেরিয়ে এল।’
পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর ইমরান খান ওই বৈঠকের প্রস্তাব দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। ভারত তাতে রাজি হয়। তবে এও জানায়, ওই বৈঠকের অর্থ এই নয় যে, দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে আবার আলাপ-আলোচনা শুরু হলো।
আনন্দবাজার জানায়, কাশ্মিরের সোপিয়ানে বৃহস্পতিবার রাতে চার পুলিশকর্মীকে অপহরণ করে জঙ্গিরা। তাদের মধ্যে তিনজনের দেহ শুক্রবার সকালে উদ্ধার করা হয়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দপ্তর সূত্রে জানানো হয়েছে, অপহৃতদের মধ্যে একজন গ্রামবাসীদের সাহায্যে পালিয়ে আসতে পেরেছেন। মঙ্গলবারই এক ভিডিও বার্তায় পুলিশ ও নিরাপত্তা কর্মীদের চাকরি থেকে ইস্তফা দেয়ার দাবি জানায় সন্ত্রাসবাদী সংগঠন হিজবুল মুজাহিদিন। পদত্যাগ না করলে হত্যার হুমকিও দেয়া হয়। এরপরই এই ঘটনা। তাই প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, অপহরণের নেপথ্যে রয়েছে হিজবুল মুজাহিদিন।
স্বরাষ্ট্র দপ্তরের এক কর্মকর্তা বলেন, উপত্যকায় জঙ্গিরা কোণঠাসা। পাথর বৃষ্টি বা অন্য কোনও বিশৃঙ্খলায় কাশ্মিরবাসী আর তাদের সাহায্য করছেন না। তাই এখন অন্য পথে চাপ সৃষ্টির চেষ্টা চলছে।