বাজেট অধিবেশন শুরু ৫ জুন

নিউজ মিডিয়া ২৪:  ঢাকা : জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হচ্ছে ৫ জুন মঙ্গলবার। এই ২১তম অধিবেশন বেলা ১১টায় শুরু হবে। বাজেট পেশ হবে ৭ জুন, পাস হবে ৩০ জুন। সরকারি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, ৫ জুন অধিবেশন শুরুর ব্যাপারে মত দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তিনি এ সংক্রান্ত ফাইলে স্বাক্ষর করলেই সংসদ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে। বুধবার এ বিষয়ে রাষ্ট্রপতির আদেশ আসতে পারে।

এর আগের ২০তম অধিবেশন গত ৮ এপ্রিল শুরু হয়ে ১২ এপ্রিল পর্যন্ত চলে। সংবিধান অনুযায়ী একটি অধিবেশন শেষ হওয়ার ৬০ দিনের মধ্যে আরেকটি অধিবেশন আহ্বানের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

                নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি

নিউজ মিডিয়াবডি২৪.কম দেশি/বিদেশী প্রতিনিধি আবশ্যক ।

বিশ্বের যেখানেই আমাদের দেশের লোকজন অবস্থান করছেন, ওয়েবসাইটে নিউজ মিডিয়াবডি২৪.কম নিয়মিত পড়ছেন, তাদের মধ্যে যারা সৌখিনতাবশতঃ সংবাদ, ছবি, প্রতিবেদন, কোন রুচিশীল লেখা পাঠানোর আগ্রহ পোষণ করেন, তারাই নিজ ছবি ও জীবনবৃত্তান্তসহ সম্পাদক বরাবরে একটি আবেদন পাঠিয়ে আমাদের নিউজ মিডিয়াবডি২৪.কম পরিবারে প্রতিনিধি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হতে পারেন। তবুও যে সকল নির্দিষ্ট দেশে/স্থানে আমাদের প্রতিনিধি আবশ্যক তা হচ্ছে : কলকাতা (ভারত), আগরতলা (ভারত), আসাম (ভারত), দিল্লি (ভারত), নেপাল, ভুটান, মালয়েশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, কানাডা, সুইডেন, চীন, শ্রীলংকা, মায়ানমার, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ব্র“নাই, দারুসসালাম, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, কাতার, কুয়েত, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, স্পেন ও সুইজারল্যান্ড সহ অন্যান্ন।
আগ্রহীগণ যোগাযোগ করুন : ০০৮৮০১৭১০৮৩০১১৪ (কামরুল হাসান রনি সম্পাদক) ই-মেইল : nmbnews24@gmail.com

Continue reading “নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি”

লন্ডনে বিশেষ সম্মাননা পেলেন ডাঃ দীপু মনি এমপি

নিউজ মিডিয়া ২৪:  নারী নেতৃত্বে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ লন্ডনে টাওয়ার হ্যামলেট কাউন্সিল থেকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয় চাঁদপুর-৩ আসনের সংসদ সদস্য সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডাঃ দীপু মনিকে। টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের স্পীকার সাবিনা আখতার ও কমিউনিটির বিশেষ ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

সাজিয়া সি্নগ্ধার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের প্রথমেই ডাঃ দীপু মনি এমপির সংক্ষিপ্ত জীবনী পাঠ করা হয়। উপস্থিত ব্যক্তিবর্গ ডাঃ দীপু মনি এমপির রাজনৈতিক জীবন, পারিবারিক জীবন এবং কর্মময় জীবন নিয়ে আলোচনা করেন।

সম্মাননা তুলে দেয়ার সময় স্পীকার সাবিনা আখতার বলেন, ডাঃ দীপু মনি এমপি সফল নারীদের মধ্যে অন্যতম উজ্জ্বল উদাহরণ। তিনি নারীদের অগ্রযাত্রায় অনুসরণীয়, অনুকরণীয়। তিনি তাঁর কর্মে, চিন্তা চেতনায়, সাহসিকতায়, ধ্যান-ধারণায় দৃঢ় চেতনার পরিচয় দিয়েছেন। ইচ্ছাশক্তি থাকলে যেকোনো বাধা বিপত্তিকে যে অতিক্রম করা সম্ভব তা ডাঃ দীপু মনি প্রমাণ করেছেন। তিনি একাধারে চিকিৎসক, রাজনীতিবিদ, আইনজীবী, গৃহিণী এবং মা। নারীদের কাছে তো বটেই পুরুষদের কাছেও তিনি উৎসাহ ও অনুপ্রেরণার একজন মানুষ। রাজনৈতিক জাগরণেও দৃষ্টান্ত হয়ে উঠবে।

সম্মাননা গ্রহণকালে ডাঃ দীপু মনি এমপি বাংলাদেশে নারী উন্নয়ন, নারীর অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে এবং অগ্রগতিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গৃহীত পদক্ষেপগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলাপ করেন। তিনি বলেন, যে কোনো দেশ যে কোনো সমাজের সামগ্রিক উন্নয়ন তখনই সম্ভব, যখন সকল ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ ও প্রতিনিধিত্ব নিশ্চিত করা যাবে। বাংলাদেশে বর্তমান সরকারের সময়ে প্রশাসনে ব্যাপকহারে নারীর অংশগ্রহণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে বিচারপতি, সচিব, উপাচার্য, ডেপুটি গভর্নর, রাষ্ট্রদূত, সেনাবাহিনী, নৌবাহিন, বিমান বাহিনী, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, মানবাধিকার কমিশনসহ ইত্যাদি ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ আশানুরূপ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। সকলের সহযোগিতা, দোয়া এবং ভালোবাসা থাকলে আগামীতে আরও ভাল কাজ করে যাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সৈয়দ মোজাম্মেল আলী ডাঃ দীপু মনির আন্তর্জাতিক অর্জনগুলো তুলে ধরেন। লন্ডন ইউনিভার্সিটির ইউকের শিক্ষা ক্ষেত্রে গ্র্যাজুয়েট কোর্সে নারীদের অন্তর্ভুক্তির ১৫০ বছর পূর্তিতে এ যাবৎকালের সকল শিক্ষার্থীর মাঝ থেকে ১৫০ জন গ্র্যাজুয়েটদের নিয়ে বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছিল। তাঁদের মাঝে শেরি বেস্নয়ার, প্রিন্সেস অ্যান, হেলেনা কেনেডির পাশাপাশি বাংলাদেশের একমাত্র অংশগ্রহণকারী ডাঃ দীপু মনিকে অভিনন্দন জানানো হয়। সমপ্রতি কমনওয়েলথ ইলেকশন অবজারভেশন গাইডলাইন রিভিউ প্যানেলের জন্যে একটি হাই লেভেল প্যানেল গঠন করা হয় এবং সেখানে এশিয়ান কমনওয়েলথ দেশ থেকে বাংলাদেশের ডাঃ দীপু মনিকে নির্বাচন করায় অনুষ্ঠানের সকলে তাঁকে অভিনন্দন জানান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সৈয়দ মোজাম্মেল আলী, যুক্তরাজ্য যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমেদ খান, যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মেহের নিগার চৌধুরী, যুক্তরাজ্য মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আঞ্জুমান আরা আঞ্জু, সহ-সভাপতি হুসনা মতিন, যুক্তরাজ্য যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজিয়া সি্নগ্ধা, সহ-সাধারণ সম্পাদক শাহিন লীনা, লন্ডন আওয়ামী লীগের সৈয়দ এহসান, আন্বারুল ইসলাম, লেবার পার্টির ফারুক আহমেদ, আহবাব হুসাইন প্রমুখ

বিজিবির নতুন ডিজির দায়িত্ব গ্রহণ

নিউজ মিডিয়া ২৪:  ডেস্ক : বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবির মহাপরিচালক (ডিজি) হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম। বুধবার সকালে ভারপ্রাপ্ত মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. আনিছুর রহমানের কাছ থেকে মহাপরিচালকের দায়িত্ব বুঝে নেন নতুন মহাপরিচালক।

সকালে নবনিযুক্ত মহাপরিচালক পিলখানায় এসে পৌঁছালে বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা তাকে অভ্যর্থনা জানান। এর আগে মো. সাফিনুল ইসলাম বাংলাদেশ চা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন। বিজিবির জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহসিন রেজা স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম ১৯৬৬ সালের ২ মার্চ জয়পুরহাট জেলায় এক মুসলিম পরিবারে জন্ম নেন। ১৯৮৪ সালের ২৫ জুন বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমিতে যোগ দেন তিনি। এরপর ১৯৮৬ সালের ২৭ জুন ইনফ্যান্ট্রি কোরে কমিশন লাভ করেন।

পেশাগত জীবনে দেশ-বিদেশে বিভিন্ন প্রফেশনাল কোর্সে অংশ নিয়েছেন মো. সাফিনুল ইসলাম। রাজধানীর মিরপুরের ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ এবং ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজের একজন গ্র্যাজুয়েট তিনি। তাছাড়া তিনি যুক্তরাষ্ট্র থেকে ইনফ্যান্ট্রি অফিসার্স অ্যাডভান্স কোর্স, সৌদি আরব থেকে স্টাফ কোর্স ও আরবি ভাষা কোর্স শেষ করেছেন। তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স ইন ডিফেন্স স্টাডিজ (এমডিএস) ডিগ্রিও অর্জন করেছেন।

মেজর জেনারেল মো. সাফিনুল ইসলাম সামরিক কর্মজীবনে স্টাফ, প্রশিক্ষক ও কমান্ড পর্যায়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বপালন করেছেন।

বঙ্গবন্ধুর ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস আজ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : আজ শনিবার ১৭ মার্চ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯তম জন্মদিন ও জাতীয় শিশু দিবস। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত এই নেতা ১৯২০ সালের এই দিনে গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রায় এই বয়সী অনেক রাজনৈতিক এবং বিভিন্ন পেশার ব্যক্তিত্বের নেতৃত্ব এবং স্ব-স্ব কর্মকাণ্ডে নিয়োজিত থাকার নজির থাকলেও বঙ্গবন্ধুকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট মাত্র ৫৫ বছর বয়সে প্রাণ দিতে হয়েছিল।

জাতি যথাযোগ্য মর্যাদা ও উৎসাহ-উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করছে। দিনটিতে সরকারি ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিবসটি উপলক্ষে পৃথক বাণী দিয়েছেন।

এ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর জন্মস্থান টুঙ্গিপাড়াতেও প্রতিবারের মত বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকাল ১০টায় টুঙ্গিপাড়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য অর্পণসহ দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে অংশগ্রহণ করবেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, বিশ্বের অন্যান্য দেশে বাংলাদেশি দূতাবাসসমূহে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় উদযাপনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। জন্মদিন উপলক্ষ্যে সারাদিন নানা অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের রেকর্ড বাজানো হবে। বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে সারা দেশে বিভিন্ন মসজিদে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল এবং অন্যান্য উপাসনালয়ে প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হবে।

বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বিভিন্ন বেসরকারি টিভি চ্যানেলসহ গণমাধ্যমগুলো দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করবে। জাতীয় দৈনিকগুলো প্রকাশ করবে বিশেষ ক্রোড়পত্র।
বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৪০ সালে সর্বভারতীয় মুসলিম ছাত্র ফেডারেশনে যোগদানের মাধ্যমে তাঁর রাজনৈতিক জীবন শুরু করেন। ১৯৪৬ সালে তিনি কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ (বর্তমানে মওলানা আজাদ কলেজ) ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

বঙ্গবন্ধু ১৯৪৯ সালে তৎকালীন আওয়ামী মুসলিম লীগের পূর্ব পাকিস্তান শাখার যুগ্ম-সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৫৩ সালে তিনি পার্টির সাধারণ সম্পাদক এবং ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্টের টিকেটে ইস্ট বেঙ্গল লেজিসলেটিভ এসেম্বলির সদস্য নির্বাচিত হন।

ন্যায়ের পক্ষে অবস্থান নেয়ায় বাঙালি জাতির অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে আজীবন সোচ্চার এই অবিসংবাদিত নেতাকে রাজনৈতিক জীবনে বহুবার কারাবরণ করতে হয়।

তিনি ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট নির্বাচন, ১৯৫৮ সালের সামরিক শাসন বিরোধী আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের ৬-দফা ও পরবর্তীতে ১১ দফা আন্দোলন এবং ১৯৬৯ সালে গণঅভ্যূত্থানসহ প্রতিটি গণতান্ত্রিক ও স্বাধিকার আন্দোলনে নেতৃত্ব দেন এবং বঙ্গবন্ধু উপাধি লাভ করেন।
তাঁর সাহসী ও দূরদর্শী নেতৃত্বে বাঙালি জাতি ধাপে-ধাপে স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে থাকে।

১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয় অর্জিত হলেও তৎকালীন পাকিস্তানের সামরিক জান্তা ক্ষমতা হস্তান্তর না করে বাঙালি জাতির ওপর নানা নির্যাতন শুরু করে। বঙ্গবন্ধু একাত্তরের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণে স্বাধীনতা সংগ্রামের ডাক দেন। যা ইউনেস্কোর ইন্টারন্যাশনাল মেমোরি অব দ্য ওয়াল্ড রেজিস্টার এ অর্ন্তভুক্তির মাধ্যমে বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে।

তাঁর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মধ্য দিয়ে বাঙালির বহু আকাঙ্ক্ষিত বিজয় ও স্বাধীনতা অর্জিত হয়।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তিনি তাঁর ধানমন্ডির বাসভবনে কতিপয় বিপথগামী সেনা কর্মকর্তার হাতে পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ নিহত হন।

বিগত বিংশ শতাব্দীর কিংবদন্তী কিউবার বিপ্লবী নেতা প্রয়াত ফিদেল ক্যাস্ট্রো- বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হিমালয়ের সঙ্গে তুলনা করেছিলেন।

ক্যাস্ট্রো বলেন, ‘আমি হিমালয়কে দেখিনি, তবে শেখ মুজিবকে দেখেছি। ব্যক্তিত্ব ও সাহসে এই মানুষটি ছিলেন হিমালয় সমান। সুতরাং হিমালয় দেখার অভিজ্ঞতা আমি লাভ করেছি।’

১৯৭৩ সালে আল-জেরিয়ায় জোট-নিরপেক্ষ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে ক্যাস্ট্রোর সাক্ষাত ঘটে।

খালেদা জিয়ার সু-চিকিৎসা দাবি চিকিৎসকদের

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা :কারাবন্দি বগেম খালেদা জিয়ার সার্বিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও সু-চিকিৎসা ব্যবস্থার জন্য অবিলম্বে কারাগারে বিশেষজ্ঞ একটি মেডিক্যাল টিম পাঠাতে সরকারের প্রতি দাবি জানিয়েছে সচেতন চিকিৎসক সমাজ।
সোমবার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে সচেতন চিকিৎসক সমাজ আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে চিকিৎসক নেতারা এ দাবি জানান।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশে মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সাবেক সভাপতি ও সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সাবেক অধ্যক্ষ ডা. একেএম আজিজুল হক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের কিডনি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক আব্দুস সালাম, ড্যাবের সহসভাপতি অধ্যাপক ডা. শহীদ হাসান, উত্তরা আধুনিক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ক্যানসার বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনার, এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ সহযোগী অধ্যাপক ডা. শহীদুল আলম, অধ্যাপক ডা. মোস্তাক আহমেদ, ডা. হারুন-উর রশিদ, ডা. মো. শহিদুল আলম. ডা. গাজী আব্দুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিশিষ্ট অর্থপোডিক বিশেষজ্ঞ ও বিএমএর সাবেক সহ সভাপতি অধ্যাপক ডা. রফিকুল কবির লাবু বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে জাতি আজ উদ্বিগ্ন। অনতিবিলম্বে খালেদা জিয়ার জামিন মঞ্জুর করে স্বাস্থ্যগত সমস্যাগুলো আশু সমাধান করা প্রয়োজন। এর মধ্যে অতি সত্তর কারাগারে বিশেষজ্ঞ একটি মেডিকেল টিম পাঠিয়ে খালেদা জিয়ার শরীরের সার্বিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও সু-চিকিৎসার ব্যবস্থা করার জন্য আমরা জোর দাবি জানাচ্ছি।
তিনি বলেন, আমরা সচেতন চিকিৎসক হিসাবে ভীষণভাবে উদ্বিগ্ন দেশনেত্রীর স্বাস্থ্যগত কারণে। আপনারা জানেন, ৭৩ বছর বয়স্ক এই মহিয়ষী বিদূষী মহিলা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। বক্ষ্যব্যাধিতে আক্রান্ত বহু বছর থেকে, বিশেষ করে শ্বাসকষ্ট জনিত রোগে। উনাকে উদ্দেশ্যমূলকভাবে যে পরিত্যক্ত জরাজীর্ণ ভবনে রাখা হয়েছে, সেখানে স্যাঁতস্যাঁতে পরিবেশের জন্য উনার পূর্বের শ্বাসকষ্ট জনিত বক্ষ্যব্যাধি মারাতœকভাবে বেড়ে যেতে পারে, যা নিয়ন্ত্রণ করার কোনো ব্যবস্থা ঐ পরিত্যক্ত জেলখানায় নেই।
খালেদা জিয়া বিগত ২০ বছর ধরে ডায়াবেটিসে ভুগছেন জানিয়ে রফিকুল কবির লাবু বলেন, জরাজীর্ণ পরিবেশ, একাকীত্ব এবং সরকারের মানসিক নির্যাতনের কারণে উনার রক্তের শর্করা অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে অথবা কমেও যেতে পারে। যা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ প্রয়োজন। অথচ ওখানকার অব্যবস্থার মধ্যে যা কোনোক্রমেই সম্ভব নয়। ফলে যে কোনো সময় দেশনেত্রীর শারীরিক অবনতি ঘটতে পারে, যার জন্য এই সরকারকেই দায়ী থাকতে হবে। উনি (খালেদ্ াজিয়া) একজন হার্টের রোগী। বিগত ১০ বছর ধরে উনি উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। পরিত্যক্ত জরাজীর্ণ পরিবেশ এবং একাকীত্বের কারণে উনি যে কোনো সময় একউট হ্নদরোগে আক্রন্ত হতে পারেন। উনি একজন চোখের রোগী। কিছুদিন পূর্বে উনি বিদেশ থেকে চোখের অপারেশন করে ফিরেছেন। এ অবস্থায় উনার চোখের নিবীড় পরিচর্যা প্রয়োজন। যা জেলখার পরিত্যাক্ত জায়ঘায় কোন অবস্থাতেই সম্ভব নয়। জরুরী ভিত্তিতে উনাকে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন।
খালেদা জিয়ার সবচেয়ে বড় সমস্যা হাঁটু সংক্রান্ত রোগ উল্লে করে বিশিষ্ট এই চিকিতসক বলেন, উনি ৩০ বছর ধরে অষ্টিও আর্থোসিস রোগে ভুগছিলেন। যা উনার স্বাভাবিক চলাফেরায় ব্যাঘাত ঘটাচ্ছিল এবং প্রচন্ড হাটু ব্যাথায় ভুগছিলেন। এক পর্যায়ে হাঁটু সংক্রান্ত বিশেষজ্ঞের পরামর্শে উনি দুটি হাঁটুই প্রতিস্থাপন করে নেন। অর্থাৎ কৃত্রিম হাঁটুর জোড়া লাগানোর অপারেশন করেন। এরপর বেশ কিছু বছর পর‌্যন্ত উনি ভালো আছেন। কিন্তু জোড়া প্রতিস্থানের পর এর ফলাফল এব জোড়া ভালো থাকার সময়কাল সম্পূর্ণ নির্ভর করে অপারেশন পরবর্তী চলাচল ও হাঁটু ভাঁজের নিয়মের উপর। এই নিয়মগুলো মেনেই উনি এতদিন ভালো ছিলেন। অবৈধ সরকারের স্বঘোষিত জরাজীর্ণ পরিত্যক্ত জেলখানায় উনি কি অবস্থায় আছেন। উনার চলাচলের অবস্থা, উনার ওয়াশরুম ব্যবহারের পদ্বতি, সবকিছুর ব্যাপারেই একজন হাঁটু বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ জরুরী প্রয়োজন বলে আমরা মনে করি। কারণ এই নিয়মগুলি বর্তমান অবস্থায় সঠিক পরামর্শ অনুযায়ী সম্পাদন না হলে খালেদা জিয়ার মারাতœক ক্ষতি হয়ে যেতে পারে। সেখানকার অব্যবস্থার জন্য উনার কৃত্রিম জোড়া দুটি কোনোভাবে ঢিলে হয়ে যায় তাহলে দেশনেত্রীর চলাফেরা মারাতœক হুমকির মুখে পড়তে পারে।
চিকিৎসক নেতৃবৃন্দ বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে শ্বাসকষ্ট, হার্টের সমস্যা, উচ্চ রক্তচাপ ও হাটু সংক্রান্ত রোগে ভুগছিলেন। কারাগারে যাওয়ার পর সেসব সমস্যা বেড়ে গেছে। ইতিমধ্যে বেগম খালেদা জিয়া বাইরের ডাক্তারদের পরামর্শ নিতে চাইলেও কারা কর্তৃপক্ষ অনুমতি দিচ্ছেনা বলে অভিযোগ করেছেন কয়েকজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক।
ডা. রফিকুল কবির লাবু বলেন, আমরা খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলাম। কিন্তু কারা কর্তৃপক্ষ দেখা করার অনুমতি দেয়নি। পরে আইজি প্রিজনের কাছে চিঠি দিলেও কোনো সাড়া পাইনি। আমরা বিভিন্ন বিষয়ের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার মিলে দেখা করতে গিয়েছিলাম। দেখে চিকিৎসা দিলে অবশ্যই তিনি ভালো হতেন বলে আশাবাদী। খালেদা জিয়া নিজেও বাইরের বিশেষজ্ঞ ডাক্তারদের পরামর্শ নিতে চেয়েছেন। অথচ কারাগারের একজন জুনিয়র ডাক্তার বলে দিলেন তিনি দীর্ঘদিন ধরে হাটুর সমস্যায় ভুগছেন, এখন সেই ব্যথা বেড়েছে।

ছবিতে মহিউদ্দিনের কুলখানির পদদলন

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সদ্য প্রয়াত সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানির মেজবানিতে গিয়ে পদদলিত হয়ে বেশ কয়েকজন হতাহত হয়েছেন। নগরের রিমা কমিউনিটি সেন্টারে দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনাস্থল থেকে দুপুরে ছবিগুলো ক্যামেরাবন্দী করেছেন জুয়েল শীল।


পদদলনে আহত ব্যক্তিদের উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া হয়।


হুড়োহুড়িতে জুতা রেখে যে যার মতো প্রাণ বাঁচাতে ছুটেছেন। এভাবে পড়ে আছে জুতাগুলো।


দুর্ঘটনার খবর শুনে আশপাশে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।


মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানি উপলক্ষে মেজবানের আয়োজন করা হয়। দুর্ঘটনার আগে রিমা কমিউনিটি সেন্টারের বাইরে মানুষের ভিড়।


দুর্ঘটনার পর ভয়-আতঙ্কে এক শিশুর কান্না।