ধ্বস্ত :প্রানে বেঁচে গেলেন ফরিদুর রেজা সাগরসহ ৬ জন

নিউজ মিডিয়া ২৪: রাজশাহী : হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় অল্পের জন্য বেঁচে গেলেন চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, নজরুল সংগীতশিল্পী ফেরদৌস আরা এবং উপস্থাপিকা ফারজানা ব্রাউনিয়া।
বৃহস্পতিবার রাজশাহীর গোদাগাড়িতে ইমপ্রেস এভিয়েশনের একটি হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে এ ঘটনা ঘটে। এসময় তাদের সঙ্গে আরও তিনজন হেলিকপ্টারে ছিলেন বলে জানা গেছে।
প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, বৈরী আবহাওয়ায় ইঞ্জিনে ত্রুটির দেখা দেওয়ায় উপজেলার হেলিপ্যাডে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
এতে চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগরসহ চারজন আহত হয়েছেন। অন্যরা হলেন রফিকুল ইসলাম, তুফান আলী ও সুমন। তবে তাদের সঙ্গে থাকা সংগীতশিল্পী ফেরদৌস আরা এবং উপস্থাপিকা ফারজানা ব্রাউনিয়া অক্ষত আছেন।
দমকল কর্মীরা আহতদের উদ্ধার করে দ্রুত রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নেয়। তাদের অবস্থা ততটা গুরুতর নয় বলে জানিয়েছেন গোদাগাড়ী ফায়ার স্টেশনের লিডার নজরুল ইসলাম।
তিনি বলেন, দুপুরে উপজেলার একটি বিদ্যালয়ে স্বর্ণ কিশোরী অনুষ্ঠানে অংশ নেন অতিথিরা। অনুষ্ঠান শেষ করে তারা ঢাকায় ফিরছিলেন। উড্ডয়নের সময় হেলিপ্টারটি ব্যর্থ হয়ে নেমে আসে। এসময় পাশের নির্মাণাধীন একটি ভবনের কলামে আটকে যায় সেটি।
এসময় আরোহীরা দ্রুত নেমে আসেন। আহত চার জনকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নেয়া হয়। সেখান থেকে তাদের দমকল কর্মীরা রামেক হাসপাতালে নেন।

উন্নত চিকিৎসা দেয়া হলে দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন খালেদা জিয়া: ব্রিগেডিয়ার হারুন

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নত চিকিৎসা দেওয়া হলে খুব দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবেন বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ)- পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহ আল হারুন।

মঙ্গলবার (৯ অক্টোবর) দুপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আব্দুল্লাহ আল হারুন সাংবাদিকদের বলেন, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল আছে। ৬ অক্টোবর হাসপাতালে ভর্তির পর এখন পর্যন্ত তার অবস্থার কোনও অবনতি হয়নি। তিনি আরো বলেন, বিএসএমএমইউয়ে খালেদা জিয়ার সকল উন্নত চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব। উনার যে রোগ (আর্থ্রাইটিস), সেই রোগের চিকিৎসার জন্য আলাদা একটা ডিপার্টমেন্টই এখানে আছে ।

আব্দুল্লাহ আল হারুন বলেন, সকালে খালেদা জিয়ার অবস্থা সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়েছি। উনি (খালেদা জিয়ার) যেহেতু হাসপাতালে ভর্তি আছেন, তাই তার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের প্রধান ড. এম এ জলিল ও ড. সৈয়দ আতিকুল হক তার ব্যাপারে সাবজেল থেকে (খালেদা জিয়া হাসপাতালের যে কেবিনে আছেন, ওই এলাকাটাকে সাবজেল ঘোষণা করা হয়েছে) সব আপডেট তথ্য সংগ্রহ করেছেন।

তিনি বলেন, আগামীকাল (বুধবার) বিকাল ৪টায় খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিক্যাল বোর্ডের চার জন সদস্য তার সঙ্গে দেখা করবেন এবং চিকিৎসার ব্যাপারে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবেন। তার কী কী শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে হবে সে ব্যাপারে খোঁজ নেওয়া হয়েছে। আজ থেকে ফিজিওথেরাপি দেওয়া হতে পারে।

প্রসঙ্গত, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে বন্দী রয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আদালতের নির্দেশে শনিবার (৬ অক্টোবর) বিকালে তাঁকে নাজিমুদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগার থেকে এনে বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি সেখানে ৬১২ নম্বর কেবিনে চিকিৎসাধীন আছেন।

আপিল বিভাগে নিয়োগ কেন্দ্র করে আ.লীগ-বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতি

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা: আপিল বিভাগে ৩ বিচারপতি নিয়োগকে কেন্দ্র করে সুপ্রিম কোর্ট বারের সভায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।
মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, আপিল বিভাগে নিয়োগপ্রাপ্ত ৩ বিচারপতির শপথের পরই তাদেরকে সংবর্ধনা দেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। এ সংবর্ধনায় যোগ দেয়নি সুপ্রিমকোর্ট বার। এরপর পর বারের সভায় এনিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।

বিচারপতি বললেন: খন্দকার মাহবুব ককটেল মারবেন এটাও বিশ্বাস করতে হবে?

নিউজ মিডিয়া ২৪: ডেস্ক: সারা দেশে বিএনপির জ্যেষ্ঠ আইনজীবীসহ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে করা চার হাজার মামলা এবং তিন লাখেরও বেশি লোককে আসামি করার বিষয়ে তদন্ত চেয়ে রিটের শুনানি হয়েছে আজ সোমবার।

শুনানিকালে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর উদ্দেশে বলেন, ‘খন্দকার মাহবুব হোসেনের মতো লোক ককটেল বিস্ফোরণ করবে এটাও আমাদের বিশ্বাস করতে হবে? এটা ঠিক না। এ ধরনের মামলায় (গায়েবি) পুলিশের ভাবমূর্তি ও বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট হয়। খন্দকার মাহবুব হোসেনের মতো লোকদের বিরুদ্ধে এমন মামলা হলে জনগণের কাছে কি ম্যাসেজ যাবে?’

আদালতে রিট আবেদনকারীদের পক্ষে ছিলেন ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, সিনিয়র অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন প্রমুখ। অন্যদিকে রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একরামুল হক টুটুল।

দুপুর আড়াইটার দিকে শুনানির শুরুতে বিএনপির নেতাকর্মীদের পক্ষের আইনজীবী ড. কামাল হোসেন আদালতে বলেন, গত মাসের ১ সেপ্টেম্বর থেকে ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সারা দেশের বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে হাজার হাজার গায়েবি মামলা করা হয়েছে। অনেক লোককে আসামি করা হয়েছে যারা মৃত ব্যক্তি। আবার অনেকে এ সময় হজে ছিলেন। অনেকে দীর্ঘদিন ধরে প্রবাসে জীবনযাপন করছেন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি খন্দকার মাহবুব হোসেন, আব্দুর রেজাক খানকে ককটেল বিস্ফোরণ মামলায় আসামি করা হয়েছে। এ ছাড়া একটি পত্রিকায় সংবাদ পরিবেশন করা হয়েছে, মৃত ব্যক্তির নামে মামলা করা হয়েছে। তাহলে মৃত ব্যক্তি কি কবর থেকে উঠে এসে ককটেল বিস্ফোরণ করে গেছেন? এসব হাস্যকর মামলা করা হলে জনগণের কাছে কী ম্যাসেজ যাবে?

এ সময় আদালত ড. কামাল হোসেনকে বলেন, আপনারা কি চান?

জবাবে ড. কামাল হোসেন বলেন, আমরা এসব গায়েবি মামলার বিষয়ে তদন্ত কমিশন চাই।

এ সময় আদালত রাষ্ট্রপক্ষের ডেপুর্টি অ্যাটর্নি জেনারেল একরামুল হক টুটুলকে বলেন, খন্দকার মাহবুব হোসেনের মতো লোক ককটেল বিস্ফোরণ করবে এটাও আমাদের বিশ্বাস করতে হবে? এটা ঠিক না।

শুনানির শুরুতে কয়েকটি মামলার এজাহার পর্যবেক্ষণ করে হাইকোর্ট বলেন, এ ধরনের মামলায় (গায়েবি) পুলিশের ভাবমূর্তি ও বিশ্বাসযোগ্যতা নষ্ট হয়।

খন্দকার মাহবুব হোসেনের মতো লোকদের বিরুদ্ধে এমন মামলা হলে জনগণের কাছে কী ম্যাসেজ যাবে?

জবাবে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একরামুল হক টুটুল আদালতকে বলেন, উনি (খন্দকার মাহবুব হোসেন) তো শুধু আইনজীবীই নন, একটি রাজনৈতিক দলের পদধারী।

এপর্যায়ে আদালত বলেন, ‘এটা কী বললেন? তিনি রাজনীতি করতে পারবেন না, এটা তো আইনে নেই। আগে আইনজীবীরাই বেশি রাজনীতিতে যুক্ত ছিলেন।’

শুনানির শেষপর্যায়ে এসে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, মাই লর্ড আমার কিছু সাব-মিশন আছে। আমি আগামীকাল বলব।

এরপর অ্যাটর্নির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আগামীকাল আদেশের জন্য দিন ধার্য করা হয়।

সাজা প্রাপ্ত সাড়ে পাঁচ হাজার আসামিকে মুক্তি দিচ্ছে সরকার

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা :ডেস্ক : দেশের সব জেলখানা থেকে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার লঘু অপরাধের সাজা পাওয়া আসামি মুক্তি দিচ্ছে সরকার। দ্বিতীয় ধাপে বৃদ্ধ, প্রতিবন্ধী,প্যারালাইস ও ক্যান্সার রোগীদের মুক্তি দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন, আইজি প্রিজন। এরইমধ্যে দ্বিতীয় ধাপে মুক্তির অপেক্ষায় থাকা আসামিদের তালিকাও তৈরী করা হয়েছে। প্রথম ধাপে গত ১৬ সেপ্টেম্বর মুক্তি পেয়েছে সিলেট বিভাগের ১৪৮জন বন্দি। তবে, মানবাধিকারকর্মী নূর খান মনে করেন নির্বাচনের আগে জেল খালি একটি নতুন গণগ্রেফতারের উদ্দেশ্য হতে পারে, যা প্রশ্নবিদ্ধ করবে সরকারকে।
সারা দেশের কারাগারে বন্দি ধারণ ক্ষমতা ৩০ থেকে ৩৫ হাজার। কিন্তু বর্তমানে সাজাপ্রাপ্ত বন্দিই আছেন ৮৪ হাজারেরও বেশি। নানা অপরাধের অভিযোগে নিয়মিত আটক কিংবা গ্রেফতারের হিসাব ধরলে এ সংখ্যা লাখ ছাড়াবে।
ফলে অনেক সময়ই বন্দিদের জন্য নিশ্চিত করা যায় না ন্যূনতম মানবাধিকারটুকুও। এ অবস্থায় লঘু অপরাধের আসামিদের মুক্তি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। প্রাথমিক অবস্থায় মুক্তি দেয়া হবে আট বিভাগের ৫ হাজার ৭৭৫ জনকে।
যার মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১ হাজার ২৪৩ জন, রাজশাহী বিভাগে ১ হাজার ৩২৩, খুলনা বিভাগে ৬০৪ আর রংপুর ৩৭৫ জন।
প্রথম ধাপে গত ১৬ সেপ্টেম্বর মুক্তি পেয়েছে, সিলেট বিভাগের ১৪৮জন বন্দি। কারা মহাপরিদর্শক বলছেন, পর্যায়ক্রমে তালিকার সবাইকে মুক্তি দেয়া হবে।
কারা মহাপরিদর্শক জানান, পরের ধাপে বৃদ্ধ, প্রতিবন্ধি, পক্ষঘাতগ্রস্ত ও ক্যান্সার রোগীদের মুক্তি দেয়া হবে। এছাড়া তালিকা করা হয়েছে বিনা বিচারে বন্দিদেরও। তবে নির্বাচনের আগে এমন উদ্যোগকে অনেকেই দেখছেন সন্দেহের চোখে। মানবাধিকারকর্মী নূর খানের মতে, নির্বাচনের আগে গণগ্রেফতারের উদ্দেশ্যে কারাগার খালি করা হচ্ছে, জনমনে উঠতে পারে এমন প্রশ্ন।
নূর খান বলেন, এ সুযোগে কোনো দাগি আসামি ছাড়া পেয়ে যায় কিনা, সেটি খেয়াল রাখতে হবে কারা কর্তৃপক্ষকে। সেইসাথে সতর্ক থাকতে হবে, ছাড়া পাওয়ারা পুনরায় যাতে অপরাধে না জড়ায় সে বিষয়েও।

সীমান্ত হত্যা শূন্যের দিকেই যাচ্ছে: বিজিবি প্রধান

ঢাকা: বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিএসএফের ‍গুলিতে বাংলাদেশির মৃত্যুর ঘটনা শূন্যে নামিয়ে আনার ঘোষণায় অগ্রগতির কথা জানিয়েছেন সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ-বিজিবি।
বাহিনীটির প্রধান মেজর জেনারেল সাফিনুল ইসলাম জানিয়েছেন, চলতি বছরের প্রথম আট মাসে সীমান্তে গুলিতে এক জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছে। আগের বছরও যা ছিল ২২ জন।
আজ সোমবার সকালে পিলখানায় বিজিবির সদরদপ্তরে ব্রিফিং করেন বাহিনীটির মহাপরিচালক। এ সময় তিনি এসব কথা বলেন।
সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি হত্যার বিষয়টি বরাবর আলোচিত বিষয়। ২০০১ সাল থেকে গত তিনটি সরকারের আমলেই সীমান্তে এক হাজার ৭৫ জন বাংলাদেশি প্রাণ হারিয়েছে।
এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি মানুষ প্রাণ হারিয়েছে বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে। ওই সরকারের শাসনামলে পাঁচ বছরে এই সংখ্যাটি ছিল ৫৬৪। অর্থাৎ প্রতি বছর গড়ে ১১৩ জন করে বাংলাদেশি হত্যা হয়েছে।
এর মধ্যে ২০০১ সালে ৯৪ জন, ২০০২ সালে ১০৫ জন, ২০০৩ সালে ৪৩ জন, ২০০৪ সালে ৭১ জন, ২০০৫ সালে ১০৪ জন এবং ২০০৬ সালে ১৪৬ জন বাংলাদেশি নিহত হয়।
সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলের দুই বছরে নিহত হয় আরও ১৮২ জন বাংলাদেশি। এর মধ্যে ২০০৮ সালে ৬২ জন এবং ২০০৭ সালে ১২০ জন নিহত হয়। অর্থাৎ ওই আমলে প্রতি বছরে গড়ে প্রাণ হারিয়েছে ৯১ জন করে।
আর বর্তমান সরকারের আমলে ১০ বছরে এখন পর্যন্ত প্রাণহানির তথ্য মিলেছে ৪০০ জন। অর্থাৎ বছরে ৪০ জন করে। তবে গত কয়েক বছর ধরে এই সংখ্যাটি ধারাবাহিকভাবে কমছে।
মানবাধিকার সংস্থা আইন ও সালিশ কেন্দ্রের হিসাবে ২০১৭ সালে সীমান্তে প্রাণ হারায় ২২ জন বাংলাদেশি। ২০১৬ সালে প্রাণ হারায় আরও ৩১ জন। ২০১৫ সালে এই সংখ্যাটি ছিল ৪৫ আর আগের বছর ৩৩।
আরেক মানবাধিকার সংস্থা ‘অধিকার’ এর হিসাবে, ২০১৩ সালে সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে নিহতের সংখ্যা ছিল ২৯ জন। ২০১২ সালে ৩৮ জন আর ২০১১ সালে ৩১ জন। ২০১০ সালে এই সংখ্যা ছিল ৭৪ জন, আর ২০০৯ সালে ৯৬ জন।
বর্তমান সরকারের আমলেই দুই দেশের সরকার এবং সীমান্তরক্ষী বাহিনী এই বিষয়টি উদ্যোগী হয় আর এই হত্যা শূন্যে নামিয়ে আনার ঘোষণাও দেয়া হয় একাধিকবার।
চলতি বছর জুলাইয়ে রাজশাহী সীমান্তের কাছে গুলিতে নিহত তিন জনকে প্রথমে বাংলাদেশি ভাবা হলেও পরে জানা যায় তারা ভারতীয়।
গত ৩ থেকে ৮ সেপ্টেম্বর বিজিবি-বিএসএফ সম্মেলনের কথা তুলে ধরে বিজিবি মহাপরিচালক বলেন, ‘চলতি বছর বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে মাত্র এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। এটি শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের সাথে সীমান্ত সম্মেলনে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।’

অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় বিপাকে সাংবাদিক, আদালতে মামলা

নিউজ মিডিয়া ২৪: নিজস্ব প্রতিবেদক: সাংবাদিক কামরুল হাসান রনি মাদকের বিরোধিতা করাসহ বিভিন্ন অন্যায়ের প্রতিবাদ করায় এলাকারই একটি স্বার্থান্বেষী ও কুচক্রী মহল অপপ্রচার চালিয়ে তার মানহানি করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই সাংবাদিক নিরুপায় হয়ে চাঁদপুরের আদালতে এক কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দাবি করে একটি মানহানির মামলা দায়ের করেছেন।
রনির গ্রামের বাড়ি ফরিদগঞ্জের গাজীপুর বাজার এলাকায়। তিনি ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে)জাতীয় প্র্রেসক্লাব রেজি নং বি-৮২৯-এর সদস্য। তার সদস্য নং ১৭৮। তথ্য মন্ত্রনালয়ের স্বীকৃত প্রেস এক্রিডিটেশন কার্ডপ্রাপ্ত (কার্ড নং ৪৩১৪) রনি নিউজ মিডিয়া ২৪ ডটকমের সম্পাদক/প্রকাশক। এছাড়াও তিনি মাসিক কমল পাতা পত্রিকার (রেজিঃ নং ডিএ ১৭৫৫) ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক।
এলাকাবাসী জানায়, গাজীপুর বাজার এলাকায় একটি স্বার্থান্বেষী ও কুচক্রী মহলের বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতি ও মাদকের বিরুদ্ধে এলাকার লোকজন থেকে তথ্য উপাত্ত নিয়ে রনি তার অনলাইন পোর্টাল ও মাসিক পত্রিকায় লেখালেখি করে আসছিল। এতে ওই চক্রটি সাংবাদিক রনির মানহানি করতে বিভিন্ন অপপ্রচার চালায়। সে কারণে নিরুপায় হয়ে তিনি বাদী হয়ে তারই এলাকার ৪ জনের নাম উল্লেখ করে চাঁদপুরের আদালতে এক কোটি টাকার মানহানির মামলা দায়ের করেন। আসামীরা হচ্ছে : গাজীপুরের ছিদ্দিক আলীর ছেলে আসাদুজ্জামান, রামদাসের বাগের হাসেম মিয়ার ছেলে আব্বাস খান, নোয়াব আলীর ছেলে আলোচিত সোনামিয়া কবিরাজ ও দায়চারা গ্রামের বেলায়েত বেপারীর ছেলে মানিক ওরফে তুহিন মিয়া।
এ ব্যাপারে ফরিদগঞ্জ থানার ওসি শাহ আলম বলেন, কামরুল হাসান রনি বাদী হয়ে দৈনিক চাঁদপুর কন্ঠ পত্রিকার রির্পোটার ও দৈনিক চাঁদপুর প্রতিদিন পত্র্রিকার ফরিদগ্ঞ্জ প্রতিনিধিসহ আরো ৪ জনের বিরুদ্ধে আদালতে এক কোটি টাকার একটি মানহানির মামলা দায়ের করেছেন। উক্ত মামলার তদন্ত রিপোর্ট দেয়ার জন্য আদালতের নির্দেশনা রয়েছে। সে মতে তদন্ত চলছে।

বজ্রসহ ভারি বর্ষণ হতে পারে

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : আগামী ৭২ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি এবং কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে।
বৃহস্পতিবার আবহাওয়া অফিস জানায়, খুলনা, বরিশাল, রংপুর, দিনাজপুর, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, সিলেট ও চট্টগ্রাম বিভাগসহ দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।
সারা দেশে দিন ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।
আজ সকাল ৬টায় ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯২ শতাংশ।
ঢাকায় আজ সূর্যাস্ত সন্ধ্যা ৬টা ১৯ মিনিটে এবং আগামীকাল সূর্যোদয় ভোর ৫টা ৪০ মিনিটে।
আবহাওয়া চিত্রের সংক্ষিপ্তসারে বলা হয়, মৌসুমি বায়ুর অক্ষের বর্ধিতাংশ ভারতের পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ, বিহার গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ এবং বাংলাদেশের মধ্যাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় বিরাজমান রয়েছে।

সম্পাদক ও প্রকাশকের পক্ষ থেকে সকলকে পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

নিউজ মিডিয়া ২৪: ভোগে নয়, ত্যাগেই প্রকৃত আনন্দ- পবিত্র ঈদুল আযহার উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ ও মানুষের কল্যাণে নিবেদিত হোক সবাই এ প্রত্যাশায় নিউজ মিডিয়াবিডি ২৪ এর অগণিত পাঠক, গ্রাহক, বিজ্ঞাপনদাতা ও সকল শুভানুধ্যায়ীকে জানাচ্ছি পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা।

মো:কামরুল হাসান রনি

প্রতিষ্ঠাতা, সম্পাদক ও প্রকাশক
নিউজ মিডিয়া ২৪/মাসিক কমল পাতা
সভাপতি,গ্রামিন জনগোষ্টির উন্নয়নের মানবাধিকার সংস্থা

সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় পড়ে গিয়ে যাত্রীর মৃত্যু

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা: রাজধানীর সদরঘাটে লঞ্চের ধাক্কায় একজনের মর্মান্তিক মৃত্যু ঘটেছে। সূত্র জানায়, সদরঘাটে ভিড়ের মধ্যে এক লঞ্চের ধাক্কায় আরেক লঞ্চের যাত্রী পড়ে গিয়ে মাথায় গুরুতর আঘাত পান। সেখানেই তিনি মারা যান। আজ দুপুর একটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।
জানা গেছে, নিহতের নাম দেলোয়ার হোসেন। তার বয়স ৫২ বছর। মেয়ে ও মেয়ে জামাইয়ের সঙ্গে ঈদ করতে বরগুনার যাচ্ছিলেন তিনি।
নৌ পুলিশের সুপার মো. আতিকুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, মঙ্গলবার ১টার দিকে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে এমন অনাকাক্সিক্ষত ঘটনা ঘটে। টার্মিনালের ৭ ও ৮ নম্বর পন্টুনের মাঝামাঝিতে ভেড়ানো ছিল এমভি পূবালী। এই লঞ্চেরই যাত্রী ছিলেন দেলোয়ার হোসেন। সেখানে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ সময় এমভি যুবরাজ নামের আরেকটি লঞ্চ পন্টুনে ভিড়তে গিয়ে এমভি পূবালীকে ধাক্কা দেয়। বেসামাল হয়ে লঞ্চের কার্নিশে ধাক্কা খান এবং তার মাথায় জোরে আঘাত লাগে। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।