রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে ভারত সব ধরণের সহযোগিতা করবে: শ্রিংলা

নিউজ মিডিয়া ২৪: কক্সবাজার: পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ও নাগরিকত্বের নিশ্চিয়তাসহ বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে ভারত সব ধরণের সহযোগিতা করতে প্রস্তুুত রয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলার সোমবার রোহিঙ্গাদের দেখতে কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গিয়ে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।
সোমবার ঢাকা থেকে একটি বিশেষ ফ্লাইটে সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছায় শ্রিংলার নেতৃত্বে প্রতিনিধিদলটি।
এর পর সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে গিয়ে পৌঁছায় দুপুর ১২টার দিকে। সেখানে ক্যাম্প এলাকা ঘুরে দেখে এবং নির্যাতনের শিকার হয়ে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলে প্রতিনিধিদলটি।
শ্রিংলা বলেন, পর্যাপ্ত নিরাপত্তা এবং নাগরিকত্বের নিশ্চিয়তাসহ বাংলাদেশে আশ্রয়নেয়া রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে সব ধরণের সহযোগিতা করতে ভারত প্রস্তুুত রয়েছে।

মেডিকেল বোর্ডের বক্তব্য স্ববিরোধী ও সরকারের চিন্তারই প্রতিফলন : বিএনপি

নিউজ মিডিয়া ২৪:ঢাকা : বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে সরকার গঠিত মেডিকেল বোর্ডের বক্তব্য স্ববিরোধী ও সরকারের চিন্তারই প্রতিফলন বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।
তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমরা বারবার বলে এসেছি- অবৈধ আওয়ামী সরকার ও সরকার প্রধান সুপরিকল্পিতভাবে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা না দিয়ে তাঁর অসুস্থতা চরম শোচনীয় অবস্থায় উপনীত করার চক্রান্ত চালিয়ে আসছে।
সোমবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।
রিজভী বলেন, সরকারি দলের অনুগত চিকিৎসকদের দিয়ে গঠিত মেডিকেল বোর্ড কারাগারে ২০ মিনিটে তথাকথিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বিএসএমএমইউ-তেই ভর্তির পরামর্শ দিয়েছেন। অর্থাৎ আমরা পূর্বেই বলেছিলাম-দেশনেত্রীর স্বাস্থ্য নিয়ে সরকার দলের অনুগত বোর্ড সদস্যরা সরকারের পছন্দানুযায়ী পরামর্শ দেবেন-সেটিই প্রমাণিত হলো।
‘বেগম খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য ঝুঁকিপূর্ণ নয়, কোনো আশঙ্কা নেই’- মেডিকেল বোর্ডের এমন বক্তব্যের কঠোর সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘দেশনেত্রীর স্বাস্থ্য যদি ঝুঁকিপূর্ণ না হয় তাহলে অন্যের সাহায্য ছাড়া তিনি এপাশ-ওপাশ হতে পারেন না কেন? একথা তো মেডিকেল বোর্ডই স্বীকার করেছে। দেশনেত্রীর অসুস্থতা নিয়ে মেডিকেল বোর্ডের বক্তব্য স্ববিরোধী ও সরকারের চিন্তারই প্রতিফলন।
রিজভী বলেন, ‘সরকারি মেডিকেল বোর্ডের পরামর্শ একদেশদর্শী ও সার্বজনীন চিকিৎসানীতির পরিপন্থী। একজন রোগীকে তার পছন্দ অনুযায়ী চিকিৎসা দেয়া উচিত, এটি তার মানবাধিকার। সেটি না করে কর্তৃপক্ষ জোর করে নিজেদের পছন্দের চিকিৎসকদের দিয়ে দেশনেত্রীর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো চরম প্রতিহিংসাপরায়ণ জেদেরই বহিঃপ্রকাশ।’
বেগম খালেদা জিয়াকে চরম স্বাস্থ্যঝুঁকিতে নিয়ে যাওয়ার জন্যই সরকারের ইচ্ছা অনুযায়ী মেডিকেল বোর্ড ‘ম্যানুফ্যাকচারিং প্রতিবেদন’ দিয়েছে, আর সেজন্যই বেগম জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসকদেরকে বোর্ডে অন্তর্ভূক্ত করা হয়নি বলেও দাবি করেন রিজভী।
তিনি অভিযোগ করেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক ঢাকাসহ সারাদেশ থেকে বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদেরকে গ্রেফতারের পাশাপাশি আটকের পর তা অস্বীকার ও গুম করে দেয়ার ঘটনায় সারাদেশে বিরাজ করছে এক ভয়াল আতঙ্কজনক পরিবেশ। নারায়ণগঞ্জ জেলা জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সভাপতি মশিউর রহমান রনীকে আটক এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কর্তৃক তাকে গ্রেফতারের বিষয়টি স্বীকার না করার ঘটনা বিরোধী নেতাকর্মীদের ওপর বর্তমান অত্যাচারী শাসকগোষ্ঠীর চলমান নিষ্ঠুর কর্মকাণ্ডের ধারাবাহিকতা।’
সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, কর্নেল (অবঃ) আব্দুল লতিফ, কৃষক দলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক তকদির হোসেন মো. জসিম, বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক মুনির হোসেন প্রমুখ।

কেন্দ্রীয় নেতা-এমপিসহ এক ডজনের বেশি নেতাকে শোকজ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : দলীয় সংসদ সদস্য মনোরঞ্জন শীল গোপাল, ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু ও আব্দুল ওয়াদুদ দারাকে শোকজ নোটিশ পাঠিয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। সোমবার আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় থেকে এ নোটিশ পাঠানো হয়েছে বলে সূত্র নিশ্চিত করেছে।
আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্রের ধারা ৪৭ (ঠ) ও ৪৭ (চ) মোতাবেক তাদের শোকজ নোটিশ পাঠানো হয়েছে বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে। মনোরঞ্জন শীল গোপাল দিনাজপুর থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য, আব্দুল ওয়াদুদ দারা রাজশাহী থেকে নির্বাচিত ও ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু বরগুনা থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য।

সূত্র জানিয়েছে, দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাক্ষরিত শোকজ নোটিশে বলা হয়েছে, দলীয় ঐক্য, সংহতি, সম্প্রীতি, আনুগত্য ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতে আপনার দায়িত্ব কর্তব্য যথাযথ ছিল কি-না এ বিষয়ে লিখিত বক্তব্য প্রদান করে আগামী ১৫ কার্যদিবসের মধ্যে লিখিত জবাব প্রেরণের জন্যে নির্দেশ দেওয়া যাচ্ছে।
শোকজ নোটিশে জানানো হয়েছে, গত ৬ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। একই ধরনের শোকজ নোটিশ দলের কেন্দ্রীয় দুই নেতাকেও পাঠানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রটি দাবি করেছে।
সূত্রের দাবি অনুযায়ী, আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিসবাহউদ্দিন সিরাজ ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন কামরান। তিনি সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে মেয়র হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিএনপির প্রার্থীর কাছে পরাজিত হন। সিটি নির্বাচনে বিতর্কিত ভূমিকায় অভিযুক্ত করে মিসবাহউদ্দিন সিরাজকে এবং ওই নির্বাচন সাতটি ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী দিতে না পারার ব্যর্থতা, সিলেট মহানগরের পূর্ণাঙ্গ কমিটি দিতে না পারা ও সিলেট মহানগরে আওয়ামী লীগের কার্যালয় নেই কেন জানতে চেয়ে কামরানকে শোকজ করা হয়েছে।
সূত্র আরও জানায়, দলীয় তিন সংসদ সদস্যকে শোকজ করার কারণ হলো তাদের কেউ এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষিত হয়েছেন। কেউ আবার সদ্য সমাপ্ত সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিতর্কিত ভূমিকা পালন করেছেন।
একই কারণে দিনাজপুর, বরগুনা ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতাকে শোকজ করা হয়েছে। যাদের শোকজ করা হয়েছে তারা হলেন- জাহাঙ্গীর কবির সাধারণ সম্পাদক বরগুনা জেলা আওয়ামী লীগ, গোলাম সরোয়ার টুকু সাংগঠনিক সম্পাদক বরগুনা জেলা, আসাদ উদ্দীন সাধারণ সম্পাদক সিলেট মহানগর, আহসানুল হক মামুন সাধারণ সম্পাদক রাজশাহী জেলা, অ্যাডভোকেট হামিদুল ইসলাম আইন সম্পাদক দিনাজপুর জেলা, আসাদুজ্জামান আসাদ সাধারণ সম্পাদক রাজশাহী জেলা, জাকারিয়া জাকা সভাপতি বীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ, গোলাম সরোয়ার টুকু সাংগঠনিক সম্পাদক বরগুনা জেলা, শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল সাংগঠনিক সম্পাদক সিলেট মহানগর, দেলোয়ার হোসেন চেয়ারম্যান বরগুনা জেলা পরিষদ।

সরকারকে সরে যেতে হবে: ফখরুল

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা: আগামী নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার আগেই সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
সোমবার বেলা ১২ টার দিকে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও তার মুক্তির দাবিতে আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এ মন্তব্য করেন।
ফখরুল বলেন, বর্তমান যে দানব সরকার দেশের জনগণের ওপর চেপে বসেছে, তাদের থেকে মুক্তি পেতে দরকার সব রাজনৈতিক দল, সংগঠনের ইস্পাতকঠিন ঐক্য। আগামী সংসদ নির্বাচনের আগে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। তাঁকে কারাগারে রেখে এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না।
বিএনপি নেতা বলেন, আজ আমাদের সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, সব রাজনৈতিক দল, সংগঠনকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। জনগণের দাবি আদায় করতে হবে। অপশাসনকে পরাজিত করতে হবে। জাতিকে মুক্তি দিতে হবে।
ফখরুল আরো বলেন, সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে এ দানবকে সরাতে হবে, এর কোনো বিকল্প নেই। তাই গণতন্ত্রমনা সব রাজনৈতিক দলকে এক হতে হবে। আসুন, সবাই ঐক্যবদ্ধ হই, গণতন্ত্রকে মুক্ত করি, মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দিই।’
তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়াকে কারাগারে রেখে এ দেশে কোনো নির্বাচন হবে না। নির্বাচনের আগে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে, তফসিল ঘোষণার আগে সরকারকে পদত্যাগ করতে হবে, নিরপেক্ষ সরকার গঠন করতে হবে, সংসদ ভেঙে দিতে হবে, সেনা মোতায়েন করতে হবে, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে। এ ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না, জনগণ হতে দেবে না।
বিএনপি মহাসচিব বলেন, আজকে আমাদের নেত্রী খালেদা জিয়া আট মাস কারারুদ্ধ। সরকার অন্যায়ভাবে মিথ্যা মামলায় তাঁকে আটকে রেখেছে। উচ্চ আদালত তাঁকে জামিন দিলেও সরকার একটার পর একটা মিথ্যা মামলা দিয়ে আটকে রাখছে। তারা চায়, বিএনপি ও দেশনেত্রীকে বাইরে রেখে নির্বাচন করতে।
তিনি বলেন, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। এটি তাঁর প্রাপ্য, আমরা সরকারের কাছে বা কারো কাছে কোনো দয়াভিক্ষা চাইছি না। দেশের একজন সম্মানিত নাগরিক হিসেবে তাঁর সাংবিধানিক অধিকার অবশ্যই দিতে হবে।

ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, সরকার গত ১০ বছরে বাংলাদেশকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছে, সংসদকে ধ্বংস করে দিয়েছে, এখন সংসদে একটা গৃহপালিত বিরোধী দল বসিয়েছে। যারা সরকারেও আছে, বিরোধী দলেও আছে। নিজেদের স্বার্থে প্রশাসন দলীয়করণ করেছে, এখন বিচার বিভাগ পুরোপুরি ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করছে।
তিনি আরো বলেন, এখন সরকার বিরোধী দলকে ধ্বংস করতে ভৌতিক মামলা দেওয়া শুরু করেছে, যেগুলোর কোনো ভিত্তি নেই। আমরা সরকারকে বলতে চাই, এভাবে গুম, খুন, মিথ্যা মামলা-নির্যাতন করে ক্ষমতা ধরে রাখা যাবে না। আজ এ নির্যাতনকারী সরকার থেকে জনগণকে মুক্তি দিতে হবে।
ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ এখন সন্ত্রাসী সরকারে পরিণত হয়েছে। তাই এদের থেকে মুক্তি পেতে দরকার ইস্পাতকঠিন ঐক্য।
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘মিথ্যা, বানোয়াট মামলায় খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। সে মামলায় খালেদা জিয়াকে জামিন দেওয়ার পরও তাঁকে মুক্তি দেওয়া হয়নি। তার একটা উদ্দেশ্য, খালেদা জিয়াকে বাইরে রেখে নির্বাচন করে ৫ জানুয়ারির মতো ক্ষমতা দখল করা। কিন্তু দেশের মানুষ খালেদা জিয়া, বিএনপি ও ২০ দল ছাড়া কোনো নির্বাচন হতে দেবে না।
খন্দকার মোশাররফ বলেন, সরকার খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা দিচ্ছে না। তিনি গুরুতর অসুস্থ। তাঁকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। তাঁর সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। অন্যথায় যেকোনো পরিস্থিতির দায় সরকারকেই নিতে হবে। তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে একটি জাতীয় ঐক্য গঠন করে সরকারে পতন নিশ্চিত করা হবে। সে জন্য সবাইকে প্রস্তুতি নিতে হবে। আন্দোলন ছাড়া সরকারের অপশাসন থেকে মুক্তির কোনো বিকল্প নেই।

সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর করতে ফের সুপারিশ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ এবং অবসরের বয়স বর্ধিতকরণের বিষয়টি পুনরায় বিবেচনার জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণের সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। দেশের উন্নয়ন ব্যবস্থাপনার বৃহৎ স্বার্থে বিসিএস (প্রশাসন) ও বিসিএস ইকোনোমিক ক্যাডার একীভূতকরণের বিষয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশও করে কমিটি।
সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনে কমিটির ৩১তম বৈঠকে এ সুপারিশ করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।।
কমিটির সভাপতি এইচ এন আশিকুর রহমানের সভাপতিত্বে কমিটির সদস্য জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী, র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, মো. আব্দুল্লাহ, মুস্তফা লুৎফুল্লাহ এবং খোরশেদ আরা হক বৈঠকে অংশ নেন।

একই কর্মস্থলে তিন বছরের অধিককাল কর্মরত রয়েছেন এমন কর্মকর্তাদের তালিকাটি সঠিক ও সুষ্ঠুভাবে প্রণয়ন করা হয়নি, তালিকাটি আরও পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে কমিটির পরবর্তী বৈঠকে পাঠানোর সুপারিশ করা হয় বৈঠকে।
বৈঠকে ভূমি ব্যবস্থাপনা ও জমি ক্রয়-বিক্রয় সংক্রান্ত, সরকারি চাকরিতে প্রবেশ ও অবসরের বয়সমীমা-সংক্রান্ত অগ্রগতি এবং উপ-সচিব হতে সচিব পর্যায়ে বাংলাদেশ সরকারের স্থায়ী পদ সংখ্যা ও বর্তমানে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের সংখ্যা-সংক্রান্ত বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।
ভূমি ব্যবস্থাপনা ও জমি কেনাবেচা-সংক্রান্ত সরকারি নির্ধারিত ফি অনলাইনের মাধ্যমে জমা প্রদান এবং জমি নিবন্ধনের ফিসহ অন্যান্য বিষয়ে স্বচ্ছতা আনার সুপারিশ করা হয়।
এছাড়া তথ্য ক্যাডারে বাংলাদেশ বেতারের পদ পুনর্বিন্যাস (ক্যাডার কম্পোজিশন) ও ডিজি পদকে গ্রেড-১ এ উন্নীতকরণের প্রস্তাবটি আগামী এক মাসের মধ্যে বাস্তবায়নের সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি। এটি বাস্তবায়ন করে কমিটির পরবর্তী বৈঠকে উপস্থাপনের সুপারিশ করা হয়।

খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসার দাবি বিএনপির

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে দাবি জানিয়েছে বিএনপি। দুপুরে সচিবালয়ে বিএনপির প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে এ দাবি জানান। বৈঠক শেষে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিক একথা জানান।
মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তিনি আমাদের কথা শুনেছেন। আমাদের দাবির প্রেক্ষিতে তিনি সরকারের সিদ্ধান্ত পরে জানান বলে জানিয়েছেন।
এর আগে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে করেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। রোববার দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটির ৭ জন সদস্য সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কক্ষে প্রবেশ করেন। কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিশ্চিতের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চেয়ে চিঠি দেয়া হয়। সেই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে সাক্ষাতের সময় দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
গত ৭ সেপ্টেম্বর বিএনপি মহাসচিব সংবাদ সম্মেলনে জানান, খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন- তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। তার বাম হাত ও বাম পা প্রায় অবশ হয়ে গেছে। অসহ্য ব্যথা অনুভব করছেন তিনি। একই কথা তিনি গত ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তরিত আদালত কক্ষেও বলেছেন।
খালেদা জিয়ার কোনো চিকিৎসা হচ্ছে না দাবি করে মির্জা ফখরুল আরও বলেছিলেন, ‘আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন তার স্বাস্থ্য নিয়ে। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে (খালেদা জিয়া) সাজানো মিথ্যা মামলায় শাস্তি দিয়ে কারাগারে বেআইনিভাবে আটক রেখে হত্যা করার হীনপ্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার।’

সরকারি হাসপাতালেই চিকিৎসা নিতে হবে খালেদা জিয়াকে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে সরকারি হাসপাতালেই চিকিৎসা নিতে হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। আজ সচিবালয়ে বিএনপির প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা জানান।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের সরকারি হাসপাতালেই উন্নত চিকিৎসা হয়। একজন রোগীর চিকিৎসা দিতে যে ধরনের সুবিধাগুলো দরকার তার সবই সরকারি হাসপাতালে আছে।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়ার চিকিৎসার বিষয়ে বিএনপির পক্ষ থেকে যে দাবি জানানো হয়েছে তার প্রয়োজনীয়তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। তাঁর অসুস্থতা গুরুতর কিনা তা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেয়া হবে। তিনি বলেন, কারাগারে তার নিয়মিত স্বাস্থ্য পরীক্ষা চলছে। সচিব-আইজি (প্রিজন)কে এ বিষয়ে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন- খালেদা জিয়ার শরীরিক অবস্থার বিষয়ে চিকিৎসকরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে জানাবেন তাকে আসলে কোন হাসপালে ভর্তি করানো দরকার, চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ীই ব্যবস্থা নেয়া হবে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, যদি চিকিৎসকরা বলেন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা সরকারি হাসপাতালে নেই তাহলে বিকল্প চিন্তা করা হবে।

মেডিকেল বোর্ড করবে সরকার
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেছেন, খালেদা জিয়াকে চিকিৎসা দেওয়ার জন্য বেসরকারি দুটি হাসপাতালের কথা বলেছেন বিএনপির নেতারা। কারাগারে নিয়মিত তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। এরপরও বিএনপি নেতাদের অনুরোধের কারণে আবারও খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হবে।
এর আগে সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীকে ইউনাইটেড হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের কাছে দাবি জানিয়েছে বিএনপি। দুপুরে সচিবালয়ে বিএনপির প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে এ দাবি জানান। বৈঠক শেষে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাংবাদিক একথা জানান।
মির্জা ফখরুল বলেন, আমরা বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার কথা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তিনি আমাদের কথা শুনেছেন। আমাদের দাবির প্রেক্ষিতে তিনি সরকারের সিদ্ধান্ত পরে জানান বলে জানিয়েছেন। দুপুরেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সঙ্গে বৈঠকে করেন বিএনপির শীর্ষ নেতারা। রোববার দুপুর ২টা ৫৫ মিনিটে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নেতৃত্বে স্থায়ী কমিটির ৭ জন সদস্য সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কক্ষে প্রবেশ করেন। কারাবন্দি বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিশ্চিতের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চেয়ে চিঠি দেয়া হয়। সেই চিঠির পরিপ্রেক্ষিতে সাক্ষাতের সময় দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।
গত ৭ সেপ্টেম্বর বিএনপি মহাসচিব সংবাদ সম্মেলনে জানান, খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে তার পরিবারের সদস্যরা জানিয়েছেন- তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। তার বাম হাত ও বাম পা প্রায় অবশ হয়ে গেছে। অসহ্য ব্যথা অনুভব করছেন তিনি। একই কথা তিনি গত ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে স্থানান্তরিত আদালত কক্ষেও বলেছেন।
খালেদা জিয়ার কোনো চিকিৎসা হচ্ছে না দাবি করে মির্জা ফখরুল আরও বলেছিলেন, ‘আমরা অত্যন্ত উদ্বিগ্ন তার স্বাস্থ্য নিয়ে। রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে (খালেদা জিয়া) সাজানো মিথ্যা মামলায় শাস্তি দিয়ে কারাগারে বেআইনিভাবে আটক রেখে হত্যা করার হীনপ্রচেষ্টা চালাচ্ছে সরকার।’

রাসায়নিক জঙ্গি হামলার আশংকায় হাসপাতালগুলোতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের চিঠি

নিউজ মিডিয়া ২৪: চট্টগ্রাম : সারাদেশে সহিংসতা ও রাসায়নিক জঙ্গি হামলার আশঙ্কা করছে দেশের সরকারি বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থা। আর এই আশংকায় দেশের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে দেশের সকল সরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে সম্ভাব্য এই হামলা মোকাবেলায় সতর্কতা ও জরুরি চিকিৎসা সেবাদানে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিতে চিঠি প্রদান করা হয়েছে।
রাসায়নিক হামলায় আহত ব্যক্তিদের চিকিৎসার জন্য প্রতিটি হাসপাতালে একটি বিশেষ চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা টিম গঠনের জন্য ওই চিঠিতে বলা হয়েছে।
এছাড়া, প্রয়োজনীয় চিকিৎসা-সরঞ্জাম-ওষুধ সীমিত আকারে মজুদ, অ্যাম্বুলেন্স সচল রাখা, অপারেশন থিয়েটারে বিদ্যুতের বিকল্প ব্যবস্থার জন্য জেনারেটর সচল রাখা ও বিশেষ চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা টিমের সকল সদস্যের বিশেষ প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা নিতেও বলা হয়েছে।
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে উপ-পরিচালক ডা, আখতারুল ইসলাম গণমাধ্যমের কাছে চিঠি প্রাপ্তির বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

যেকোনো মূল্যে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যে প্রস্তুত ২০ দলীয় জোট

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা :যেকোনো মূল্যে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গঠনে প্রস্তুত ২০ দলীয় জোট। টানা একযুগ ধরে রাজপথে থাকা বিরোধী এই জোট আজকের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়। সন্ধ্যায় শুরু হওয়া ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতাদের বৈঠক আজ রাত সোয়া আটটায় শেষ হয়। এর আগে রোববার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ বৈঠকটি শুরু হয়।
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২০ দলের সমন্বয়কারী নজরুল ইসলাম খান।
বৈঠক শেষে ব্রিফিং করে ২০ দলের সমন্বয়ক ও বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান জানান, দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য সব গণতন্ত্রকামী দল ও সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বৃহত্তর ঐক্য গঠনে একমত হয়েছে ২০ দল। এসময় জামায়াতে ইসলামীসহ ২০ দলের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
জোটের শরীক জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য মাওলানা আব্দুল হালিম, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল ( অব.) সৈয়দ মুহম্মদ ইবরাহিম বীর প্রতীক, জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান আন্দালিভ রহমান পার্থ, এলডিপি মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমদ, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, এনডিপির চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্তাজা, বাংলাদেশ ন্যাপ এর মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভূইয়া, মুসলিম লীগের সভাপতি এএইচ এম কামরুজ্জামান, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, লেবার পার্টির একাংশের চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব আহমদ আব্দুল কাদের, জাগপার সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান, মহাসচিব খন্দকার লুৎফর রহমান, জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের মহাসচিব নূর হোসাইন কাসেমী, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মহিউদ্দিন ইকরাম, সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক কমরেড সাঈদ আহমদ, পিপলস লীগের মহাসচিব সৈয়দ মাহবুব হোসেন, ডেমোক্রটিক লীগের মহাসচিব সাইফুদ্দিন মনি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নয়াপল্টনে মানুষের ঢল ,বৃহত্তর ঐক্যের ডাক বিএনপির

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা: প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সমাবেশ থেকে বৃহত্তর ঐক্যের ডাক দিয়েছে বিএনপি। সমাবেশে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই ডাক দিয়ে বলেছেন, ‘এখন আর বিভেদ নয়, গণতন্ত্র রক্ষায় ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশ রক্ষায় বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। আমাদের বুকের ওপর যে দুঃশাসন চেপে বসেছে তাদেরকে পরাজিত করতে হবে।’

বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শনিবার নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের সড়কে আয়োজিত জনসভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘সরকারের এখন বিএনপি ভীতি কাজ করছে। এই ভীতি থেকে বাঁচতে ইভিএম নিয়ে আসছে।’

আওয়ামী লীগ একটা দেউলিয়া রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়েছে এমন মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘নির্বাচনের আগে সংসদ ভেঙে দিতে হবে। নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করতে হবে।’

গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার জন্য নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল বলেন, ‘বুকে সাহস নিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে হবে।’ এসময় তিনি খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সব মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান।