ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের ৫ নেতা বহিষ্কার, শিক্ষকদের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহার

নিউজ মিডিয়া ২৪: টাঙ্গাইল : টাঙ্গাইলের মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদারসহ পাঁচ ছাত্রলীগ নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
সোমবার রাতে ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয় রিজেন্ট বোর্ডের জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
এদিকে এ বহিষ্কারের সিদ্ধান্তের পর মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি সভা করে তাদের পদত্যাগের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করেছে। সংগঠনের নেতাদের বহিষ্কারের প্রতিবাদে এবং বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডিন্যান্স সংশোধনের দাবিতে ছাত্রলীগ মঙ্গলবার ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেছে। সংবাদ সম্মেলন করে তারা বহিষ্কারাদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন।
প্রক্টর ড. সিরাজুল ইসলাম জানান, সোমবার উপাচার্যের সভাপতিত্বে রিজেন্ট বোর্ডের সভা অনুষ্ঠিত হয়। শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করায় বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদার, সহসভাপতি ইমরান মিয়া ও পান্না দাস এবং যুগ্ম সম্পাদক জাবির ইকবাল ও ইয়াসিন আরাফাতকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
তিনি বলেন, মঙ্গলবার তাদের সাময়িক বহিষ্কারের চিঠি দেয়া হয়েছে। কেন স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হবে না সাত দিনের মধ্যে তার কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভা মঙ্গলবার দুপুরে অনুষ্ঠিত হয়।
সমিতির সাধারণ সম্পাদক পিনাকী দে জানান, জড়িত শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ায় বিভিন্ন দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করা শিক্ষকদের পদত্যাগপত্র প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
প্রক্টর জানান, সোমবার রিজেন্ট বোর্ডের সভায় বোর্ড সদস্য নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য সাইদুল হক চৌধুরীকে প্রধান করে একটি অর্ডিন্যান্স সংশোধনী কমিটি গঠন করা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অনুষদের ডিন এ কমিটির সদস্য থাকবেন।
এ ছাড়া রোববার শিক্ষকদের সঙ্গে কতিপয় শিক্ষার্থীর অসৌজন্যমূলক আচরণের ঘটনার বিষয়েও বোর্ড সদস্য জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য শরীফ এনামুল কবিরকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।
এদিকে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক মহিউদ্দিন তাসনিমের বিরুদ্ধে ওই বিভাগের এক শিক্ষার্থীর আনা যৌন হয়রানির অভিযোগ বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘যৌন নির্যাতন ও হয়রানি প্রতিরোধ কমিটি’কে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়।
এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে। দুপুরে টাঙ্গাইল প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে পাঁচ ছাত্রলীগ নেতাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার এবং বিশ্ববিদ্যালয় অর্ডিন্যান্স সংশোধনের দাবি জানানো হয়।
এ ছাড়া পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের এক ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নকারী ওই বিভাগের শিক্ষকের শাস্তি দাবি করা হয়।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন- বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদার।
এ সময় সাধারণ সম্পাদক সাইদুর রহমান, সহসভাপতি পান্না দাস ও ইমরান মিয়া, যুগ্ম সম্পাদক জাবির ইকবাল ও ইয়াসিন আরাফাত এবং শিক্ষকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আনা শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
প্রসঙ্গত, রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় তৃতীয় বর্ষের প্রথম সেমিস্টারের কোয়ান্টাম মেকানিক্স-১ পরীক্ষা শুরু হয়। এ সময় দ্বিতীয় বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের অকৃতকার্য হওয়া এক শিক্ষার্থীকে ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ পরীক্ষার হলে নিয়ে আসে। বিভাগের পক্ষ থেকে অনুমোদন না দেয়ার পরও জোর করে পরীক্ষা হলে আসনে বসিয়ে দেয় ছাত্রলীগের ওই নেতারা।
বিভাগের শিক্ষকরা বাধা দিতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সজীব তালুকদারসহ তার সহযোগী আরও কয়েকজন পরীক্ষার হলে দায়িত্বরত শিক্ষকদের অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করতে ঔদ্ধত্য হন।
একপর্যায়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ওই শিক্ষার্থীকে পাহারা দিয়ে সম্পূর্ণ পরীক্ষা শেষ করায়। রাতেই সব শিক্ষক সব প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে একযোগে পদত্যাগের ঘোষণা দেন। সোমবার দুপুরে রেজিস্টারের কাছে ৫৬ শিক্ষক পদত্যাগপত্র জমা দেন।

৫৭ ধারায় চবি শিক্ষক মাইদুলের রিমান্ডের প্রতিবাদে জাবি শিক্ষকদের বিক্ষোভ

নিউজ মিডিয়া ২৪: জাবি: ৫৭ ধারায় গ্রেপ্তারকৃত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) সহযোগী অধ্যাপক মাইদুল ইসলামের রিমান্ড মঞ্জুরের প্রতিবাদে মুখে কালো কাপড় বেধে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা।
সোমবার বিশ্ববিদ্যালয়ের চলমান ভর্তি পরীক্ষার ৬ষ্ঠ শিফটের পরীক্ষা চলাকালে এ প্রতিবাদ করেন তারা। ভর্তি পরীক্ষা শেষে সমাজবিজ্ঞান অনুষদ প্রাঙ্গণে শিক্ষকরা সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হন। সমাবেশে শিক্ষকরা এ ঘটনার প্রতিবাদ জানান।
সমাবেশে নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক সাঈদ ফেরদৌস বলেন, ‘এটা শিক্ষকদের তাৎক্ষণিক প্রতিবাদ। মাইদুল ইসলামের সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তা নজিরবিহীন। প্রত্যেকের নিজ নিজ জায়গা থেকে এর প্রতিবাদে আওয়াজ তোলা উচিৎ। আমরা আমাদের ভর্তি পরীক্ষার দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছি এবং এই ঘটনার প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’
একই বিভাগের অধ্যাপক মির্জা তাসলিমা সুলতানা বলেন, ‘শিক্ষকরা কথা বলবে। দেশের অর্থনীতি নিয়ে কথা বলবে,দেশের নীতিমালা নিয়ে কথা বলবে। বিভিন্ন ইস্যুতে যৌক্তিক সমালোচনা করাই আমাদের কাজ। সরকারকেও সমালোচনা সহ্য করতে হবে। কিন্তু যৌক্তিক ইস্যুতে কথা বলায় মাইদুল ইসলামের প্রতি যে আচরণ করা হয়েছে তা নজিরবিহীন। ’
এ সময় ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের অধ্যাপক নূরুল ইসলাম বলেন, ‘যৌক্তিক ইস্যুতে সমালোচনা করা শিক্ষকদের কর্তব্য। কিন্তু বর্তমানের শিক্ষকসহ সকলের বাকস্বাধীণতা হরণ করা হচ্ছে। কোটা সংস্কারের পক্ষে কথা বলে মাইদুল ইসলাম রাষ্ট্রবিরোধী কোন কাজ করেননি। তাই সকল শিক্ষকের উচিৎ এ ঘটনার প্রতিবাদ করা।’
এই সময় নৃবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক মানস চৌধুরী, অধ্যাপক জহির উদ্দিন আহমেদ, অধ্যাপক আইনুন নাহার ও সরকার ও রাজনীতি বিভাগের অধ্যাপক শামসুল আলম সেলিমসহ বিভিন্ন বিভাগের ২০ জন শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন।

ভর্তি পরীক্ষা দেওয়া হচ্ছে না দুই আন্দোলনকারীর

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : আদালতের আদেশের পরও দুই শিক্ষার্থী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের খ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষা দিতে পারছেন না। আগামীকাল ২১ সেপ্টেম্বর এই দুই শিক্ষার্থীর পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। ওই দুই শিক্ষার্থীর নাম নাইমুল হাসান ইরফান ও রফিকউল্লাহ।
বাকলিয়া থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে দায়ের হওয়া মামলায় ওই দুজনকে গত ১৮ সেপ্টেম্বর গ্রেফতার করা হয়। দুজনই এখন চট্টগ্রাম কারাগারে আছেন।
নাইমুল ও রফিকের আইনজীবী শামসুল আলম বলেন, ওই দুই শিক্ষার্থী নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে জামিন ও পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়ার আবেদন করেছিলেন ১৯ সেপ্টেম্বর। আদালত বিধি মোতাবেক ওই দুই ছাত্রের পরীক্ষা নেওয়ার আদেশ দেন।
চট্টগ্রাম জেল থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য, ডিন, প্রক্টর, পরীক্ষা আহ্বায়ক, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বরাবর চিঠি পাঠানো হয়। ওই চিঠিতে আদালতের আদেশের বিষয়টি উল্লেখ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়।
কারা অধিদপ্তরের উপমহাপরিদর্শক (ঢাকা বিভাগ) তৌহিদুল ইসলাম আজ সন্ধ্যায় গণমাধ্যমকে বলেন, আদালতের আদেশ থাকলে বন্দী কোনো শিক্ষার্থী পরীক্ষা দিতে পারবেন কি না তা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করবে। এ ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার কেরানীগঞ্জে পাঠাবেন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি কারাগারে গিয়ে পরীক্ষা নেবেন।
চট্টগ্রাম কারাগারের ডেপুটি জেলার মনির হোসাইন জানিয়েছেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেননি। পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ব্যাপারে যে আইন সেটিও খুব স্পষ্ট নয়।
জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান গণমাধ্যমকে বলেন, ভর্তি পরীক্ষা দিতে যারা কেন্দ্রে আসবে কেবল তাদেরই পরীক্ষা নেওয়া হবে। আদালতের আদেশ প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, কারা কর্তৃপক্ষ যদি বিশেষ ব্যবস্থাপনায় তাদের নিয়ে আসে, তাহলে বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা নেবে।

নজিরবিহীন ফল, ঢাবিতে ‘গ’ ইউনিটে ফেলের হার ৮৯.০২ শতাংশ

নিউজ মিডিয়া ২৪:ঢাবি: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের অধীন ‘গ’ ইউনিটের প্রথম বর্ষ স্নাতক সম্মান শ্রেণিতে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেয়া পরীক্ষার্থীদের ফেলের হার ৮৯ দশমিক ০২ শতাংশ।
২৫ হাজার ৯৫৮ জন পরীক্ষার্থী ভর্তিযুদ্ধে অংশ নিয়ে ফেল করেছে ২৩ হাজার ১০৮ জন পরীক্ষার্থী।
অন্যদিকে পাস করেছে ২ হাজার ৮৫০ জন পরীক্ষার্থী। যেখানে পাসের হার মাত্র ১০ দশমিক ৯৮ শতাংশ।
আজ সোমবার বেলা ১১টায় ঢাবি ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান প্রশাসনিক ভবনস্থ কেন্দ্রীয় ভর্তি অফিসে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ফলাফল প্রকাশ করেন।
‘গ’ ইউনিটের অধীনে আসন রয়েছে ১ হাজার ২৫০টি। আগামী ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১ অক্টোবর পর্যন্ত পছন্দ তালিকা পূরণ করতে পারবেন পাসকৃত শিক্ষার্থীরা।
পরীক্ষার বিস্তারিত ফলাফল এবং ভর্তি প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে admission.eis.du.ac.bd জানা যাবে। এছাড়া DU GA লিখে রোল নম্বর লিখে ১৬৩২১ নম্বরে send করে ফিরতি SMS এ ভর্তিচ্ছুরা তার ফলাফল জানতে পারবেন।।

প্রাথমিকের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রাজস্ব খাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ-২০১৪’ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল প্রকাশিত হয়েছে। এতে ৯ হাজার ৭৬৭ জন উত্তীর্ণ হয়েছেন। সোমবার রাতে (১০ সেপ্টেম্বর) প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) ওয়েবসাইটে এ ফল প্রকাশ করা হয়।
উল্লেখ্য, রাজস্ব খাতভুক্ত ‘সহকারী শিক্ষক নিয়োগ ২০১৪’ দীর্ঘদিন স্থগিত থাকার পর চলতি বছর ২০ এপ্রিল লিখিত পরীক্ষা শুরু হয়। চারটি ধাপে সারা দেশের ৬১টি জেলায় লিখিত পরীক্ষা হয়। মোট ১৩ লাখ আবেদন করলেও লিখিত পরীক্ষায় অংশ নেন প্রায় সাড়ে ৭ লাখ প্রার্থী। তার মধ্যে ২৯ হাজার ৫৫৫ জন উত্তীর্ণ হন।
নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী আসন প্রতি তিনজন প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। তার মধ্যে দুইজন নারী ও একজন পুরুষ প্রার্থীকে নির্বাচন করা হয়। গত ৮ জুলাই সারা দেশের সব জেলার লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়। ২৯ জুলাই থেকে ১৫ আগস্ট পর্যন্ত মৌখিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

গুজবের মামলায় দুইদিনের রিমান্ডে সেই ১২ শিক্ষার্থী

নিউজ মিডিয়া ২৪: ঢাকা : নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলন চলার সময় গুজব ছড়ানোর অভিযোগে দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার দেখানো সেই ১২ শিক্ষার্থীর দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার ঢাকার মহানগর হাকিম নুরুন্নাহার ইয়াসমিনের আদালত রিমান্ডের এ আদেশ দেন।
এদিন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক নিরু মিয়া আসামিদের আদালতে হাজির করেন সাত দিন করে রিমান্ড আবেদন করলে আদালত প্রত্যেককে দুদিন করে রিমান্ডের আদেশ দেন। অন্যদিকে আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জসিম উদ্দিন, কামাল হোসেনসহ অনেকেই রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন।
রিমান্ডে যাওয়া শিক্ষার্থীরা হলেন- তারেক আজিজ, তারেক, জাহাঙ্গীর আলম, মো. মোজাহিদুল ইসলাম, মো. আল আমিন, জহিরুল ইসলাম, মো. বোরহান উদ্দিন, ইফতেখার আলম, মেহেদী হাসান রাজিব, মো. মাহফুজ, সাইফুল্লাহ ও রায়হানুল আবেদিন। এরআগে সোমবার দুপুরে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় ১২ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার দেখায় পুলিশ।
এর আগে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে উপপুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) মো. মাসুদুর রহমান গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রাজধানীর তেজগাঁওয়ের তেজকুনীপাড়া এলাকা থেকে রোববার ১২ শিক্ষার্থীকে গ্রেফতার করেছে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। তাদের তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানায় দায়ের করা দুটি মামলায় গ্রেফতার করা হয়।
এর আগে রোববার দুপুরে বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন (ক্র্যাব) মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে ওইসব ছাত্রের অভিভাবকরা অভিযোগ করে বলেন, ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) কার্যালয়ে ১২ জন ছাত্রকে ৪ দিন ধরে অন্যায়ভাবে আটক রেখে নির্যাতন করা হচ্ছে। অথচ তাদের আটক বা গ্রেফতারের বিষয়টি স্বীকার করা হচ্ছে না। এমনকি তাদের আদালতেও সোপর্দ করা হচ্ছে না।। অভিভাবকরা দাবি করে বলেন, গত ৫ সেপ্টেম্বর রাতে তেজগাঁও-মহাখালী এলাকায় অভিযান চালিয়ে আমাদের সন্তানসহ অনেক ছাত্রকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের মধ্যে ডিবি কার্যালয় থেকে বেশ কয়েকজনকে ছেড়ে দেয়া হলেও আমাদের আরও ১২ সন্তানদের আটকে রেখে নির্যাতন করা হচ্ছে।

মেডিকেলে ভর্তির আবেদন শুরু ৩১ আগস্ট

নিউজ মিডিয়া ২৪:ঢাকা: ২০১৮-২০১৯ সেশনে এমবিবিএস কোর্সে ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরুর তারিখ পরিবর্তন হয়েছে। আজ সোমবার থেকে অনলাইনের মাধ্যমে এ আবেদন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা হচ্ছে না। শুরু হবে ৩১ আগস্ট থেকে। তবে শেষ হবে পূর্ব নির্ধারিত ১৮ সেপ্টেম্বর।

এ সংক্রান্ত স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, সম্প্রতি কয়েকটি জেলায় নতুন সরকারি মেডিকেল কলেজ স্থাপনের প্রেক্ষিতে এমবিবিএস ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি সংক্রান্ত অনলাইন সফট্ওয়্যার প্রস্তুতকরণের সুবিধার্থে ছাত্র-ছাত্রীদের অনলাইন ভর্তির আবেদনগ্রহণ আগামী ২৭/০৮/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ তারিখের পরিবর্তে ৩১/০৮/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ তারিখ দুপুর ১২টা হতে শুরু হবে। অনলাইনে আবেদনের শেষ তারিখ ১৮/০৯/২০১৮ খ্রিস্টাব্দ দুপুর ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত অপরিবর্তিত থাকবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, এমবিবিএস ভর্তির জন্য অনলাইন ফরম পূরণের নিয়মাবলী ও ভর্তি সংক্রান্ত বিজ্ঞরিত তথ্য http://dghs.teletalk.com.bd স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইট www.mohfw.gov.bd এবং স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ওয়েবসাইট www.dghs.gov.bd হতে জানা যাবে।

পরীক্ষায় আবেদন করতে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের এসএসসি ও এইচএসসিতে মোট জিপিএ-৯ থাকতে হবে। সকল উপ-জাতীয় ও পার্বত্য জেলার অ-উপজাতীয় প্রার্থীদের ক্ষেত্রে এসএসসি/সমমান ও এইচএসসি/সমমান পরীক্ষায় মোট জিপিএ কমপক্ষে ৮ হতে হবে। তবে এককভাবে কোনো পরীক্ষায় জিপিএ ৩.৫০ এর কম হলে আবেদনের যোগ্য হবেন না। তবে সবার জন্য জীববিজ্ঞানে (Biology) ন্যূনতম জিপি ৩.৫০ থাকতে হবে।

ফেসবুকে ‘গুজব ছড়ানো’র মামলা No icon অভিনেত্রী নওশাবার জামিন মঞ্জুর

নিউজ মিডিয়া ২৪:ঢাকা : নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ‘গুজব ছড়ানো’র অভিযোগে গ্রেপ্তার অভিনেত্রী কাজী নওশাবার জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের মামলায় নওশাবার জামিন মঞ্জুর করেন ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস। আদালত সূত্রে এতথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে সাংবাদিকদের এই তথ্য নিশ্চিত করে অভিনেত্রী ও মডেল কাজী নওশাবা আহমেদের আইনজীবী এএইচ ইমরুল কাওসার । তিনি জানান, আজ বিকেলে ঢাকার সিএমএম আদালত ১৫-এর বিচারক দেবব্রত বিশ্বাস-এর আদালত তাকে জামিন আদেশ দেন।

প্রসঙ্গত, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে গত ৪ আগস্ট রাতে রাজধানীর উত্তরা থেকে নওশাবাকে আটক করে র্যাব। এরপর তার বিরুদ্ধে তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা করা হয়। ওই মামলায় দুই দফায় মোট ৬ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর তাকে হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়।

গত ৪ আগস্ট রাজধানীর জিগাতলায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে অন্য যুবকদের ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার ঘটনায় ফেসবুকে লাইভে এসে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু এবং একজনের চোখ তুলে ফেলার খবর দিয়েছিলেন নওশাবা; অথচ তখন তিনি ছিলেন উত্তরায় শুটিংয়ে। পরে আরেকটি ভিডিওতে নওশাবা দাবি করেছেন তিনি ভুল তথ্যে বিভ্রান্ত হয়েছিলেন। এর জন্য তিনি দুঃখও প্রকাশ করেছিলেন।

সমুদ্র সৈকতে গোসলে নেমে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীর মৃত্যু

নিউজ মিডিয়া ২৪: কক্সবাজার: কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে গোসলে নেমে পানিতে ডুবে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ইফতেখারুল আলম আবিদের (২৫) মৃত্যু হয়েছে।
শনিবার সকাল ৮টায় সমুদ্র সৈকতের লাবণী পয়েন্টে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
নিহত আবিদ ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও ফেনী জেলার ধুলসরদা এলাকার মো. ইউনুছ আলীর ছেলে।
কক্সবাজার ট্যুরিস্ট পুলিশের এসআই মাহমুদুল আলম বলেন, বন্ধুদের সঙ্গে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে বেড়াতে যান আবিদ। সকাল ৭টার দিকে সৈকতের লাবণী পয়েন্টে বন্ধুদের সঙ্গে গোসলে নেমে আবিদ পানিতে ডুবে যান।
ট্যুরিস্ট পুলিশ ও সি-সেইফ লাইফগার্ডের সদস্যরা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক আবিদকে মৃত ঘোষণা করেন।

বেরোবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের মিছিলে ছাত্রলীগের হামলা, আহত ৫

নিউজ মিডিয়া ২৪:রংপুর: রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় (বেরোবি) ক্যাম্পাসে কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের মিছিলে হামলা করেছে ছাত্রলীগ। এতে আহত হয়েছেন পাঁচজন শিক্ষার্থী।
আজ বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।
এদিকে হামলার ঘটনায় ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করছে।
জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কোটা বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল বের করে কোটা আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি প্রশাসনিক ভবনের কাছে আসলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা পেছন থেকে মিছিলের ওপর হামলা চালায়। তাদের মারধরে পাঁচ শিক্ষার্থী আহত হন। হামলার কারণে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়।
আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এদের মধ্যে দুজনের নাম জানা গেছে।
তারা হলেন- রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আলমগীর কবীর ও রাশেদুল ইসলাম। এদিকে ঘটনার সময় পুলিশ না থাকায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।
এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ অভিযোগ করে বলেন, ‘দেশকে অস্থিতিশীল করতে কোটাবিরোধী আন্দোলনের নামে অরাজকতা করা হচ্ছে।’
তিনি আরও বলেন, ‘মিছিলকারীদের বেশিরভাগ বহিরাগত । বিশ্ববিদ্যালয়ে বহিরাগতরা শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করবে তা বরদাশত করা হবে না বলেই আমরা তাদের প্রতিরোধ করেছি।’
অন্যদিকে কোটা আন্দোলনের বিশ্ববিদ্যালয় শাখার যুগ্ন আহ্বায়ক রোকনুজ্জামান বলেন, ‘আজকে যারা মিছিলে অংশ নিয়েছে তারা সবাই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। এভাবে শান্তিপূর্ণ মিছিলে হামলা করে তাদের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না।’
এদিকে শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করেছে, ছাত্রলীগ মিছিলে হামলার সময় কয়েকজন পুলিশ রাসেল চত্বর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ফাঁড়িতে অবস্থান করলেও তারা কেউই আসেনি।